সিরিয়ায় সামরিক অভিযান প্রশ্নে আমেরিকার সমর্থন বাড়ছে: জন কেরি

আমেরিকার পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি বলেছেন, সিরিয়ায় সামরিক অভিযান চালানোর বিষয় তার দেশকে এখন অন্য অনেক দেশই সমর্থন করছে। গত মাসে দেশটিতে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারের পর এক হাজার চারশ’রও বেশি মানুষ নিহত হয়। তবে ফরাসি পররাষ্ট্রমন্ত্রী লঁরা ফ্যাবিউসের সাথে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখতে গিয়ে কেরি কোন কোন দেশ তাদের প্রতি সমর্থন দিয়েছে সে ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট করে কিছু বলেননি।
সিরিয়ায় কিছু একটা করার বিষয়ে ফ্রান্স আমেরিকাকে সমর্থন দিয়ে এলেও দেশটি ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথে একটি বিষয়ে একমত পোষণ করে, আর তা হলো জাতিসংঘের অস্ত্র পরিদর্শকদের প্রতিবেদন পাওয়ার আগ পর্যন্ত তারা অপেক্ষা করতে চান।

তবে কেরি বলছেন, ফ্রান্স কিংবা তার দেশ আমেরিকা সিরিয়ায় যুদ্ধে লিপ্ত হবার বিষয়ে আলাপ করছে না। তারা এমন এক সীমিত আকারে সামরিক অভিযানের বিষয়ে কথা বলছেন যাতে করে সিরিয়ার কর্তৃপক্ষের আবারো রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করার সক্ষমতা কমে যায়।

ওদিকে সিরিয়ায় শান্তি কামনা করে প্রার্থনা করতে ভ্যাটিকানে লাখো মানুষ জড়ো হয়েছে।

আমেরিকার অভিযোগ সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ গত ২১ আগস্ট রাসায়নিক অস্ত্রের হামলা চালিয়ে ১৪ শরও বেশি মানুষকে হত্যা করেছে। তবে সিরিয়ার সরকার এই অভিযোগ অস্বীকার করছে।

ফ্রান্স গত মাসে সিরিয়ায় রাসায়নিক হামলার অভিযোগে দেশটিতে সামরিক হামলা চালানোর আমেরিকার পরিকল্পনার প্রতি সমর্থন জানিয়ে আসছে। তবে ইউরোপীয় ইউনিয়নিয়নভুক্ত অন্যান্য দেশের মত জাতিসংঘের পরিদর্শক দলের রিপোর্ট পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করার পক্ষে ফ্রান্সের অবস্থান।

ওদিকে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ফ্রাসোয়া ওঁলাদ আশা প্রকাশ করে বলেছেন, জাতিসংঘের অস্ত্র পরিদর্শকদের একটি প্রাথমিক প্রতিবেদন আগামী সপ্তাহের মধ্যে পাওয়া যাবে।
সিরিয়ায় গত আড়াই বছর ধরে চলা সংকটে এক লাখেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে বলে জাতিসংঘ বলছে। সূত্র: বিবিসি


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।