তৃতীয় মেয়াদে জার্মানির চ্যান্সেলর মার্কেল

একটানা তৃতীয়বারের মতো জার্মানির নির্বাচনে জয়ী হয়েছে রক্ষণশীল ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্রেটিক ইউনিয়ন (সিডিউ)। সে হিসেবে তৃতীয় দফায় ইউরোপের শক্তিশালী অর্থনীতির দেশটির চ্যান্সেলর হচ্ছেন সিডিউ নেতা অ্যাঙ্গেলা  মার্কেল। খবর বিবিসি’র।

জার্মান রাজনীতির ইতিহাসে মেরকেল প্রথম কোনো নারী যিনি টানা তিন দফায় দেশটির চ্যান্সেলর হওয়ার সৌভাগ্য অর্জন করলেন। ফলে তিনি ইউরোপের সবচেয়ে দীর্ঘকালীন শাসকে পরিণত হতে যাচ্ছেন। এক্ষেত্রে লৌহমানবী মার্গারেট থ্যাচারকেও ছাড়িয়ে যাচ্ছেন মরকেল।

দেশটির নির্বাচন কমিশনের তথ্য মতে, জার্মানির ১৮তম বুন্দেস্তাগ (পার্লামেন্ট) নির্বাচনে মরকেলের সিডিউ পেয়েছে ৪১ দশমিক ৫ শতাংশ ভোট। অপরদিকে সিডিউ’র প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী পিয়ার স্ট্রাইনব্রুকের নেতৃত্বাধীন সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক (এসডিপি) পেয়েছে ২৫ দশমিক ৭ শতাংশ ভোট।

দ্বিতীয় সারির দলগুলোর মধ্যে বামপন্থি লেফট পার্টি (এলপি) পেয়েছে ৮ দশমিক ৬ শতাংশ ভোট, আর পরিবেশবাদী গ্রিন পার্টি (জিপি) পেয়েছে ৮ দশমিক ৪ শতাংশ।

তবে সিডিউ’র জোট শরিক ফ্রি ডেমোক্রেটিক (এফডি) মাত্র ৪ দশমিক ৮ শতাংশ ভোট পাওয়ায় মরকেলের দলকে সরকার গঠনে নতুন শরিক খুঁজতে হবে। এক্ষেত্রে সিডিউর নেতৃত্বাধীন সরকার গঠনের জন্য প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী এসডিপি ও জিপিকে শরিক হিসেবে ভাবা হচ্ছে বলে জানা গেছে। নির্বাচনে ৭২ শতাংশ ভোট পড়েছে।

নির্বাচন কমিশনের ফলাফল ঘোষণার হওয়ার কয়েক ঘণ্টা পর সিডিউ’র বার্লিন সদরদপ্তরে বিজয় ভাষণ দিয়েছেন অ্যাঙ্গেলা মেরকেল।

বিজয় ভাষণে তিনি বলেন, জার্মানিকে সফল রাষ্ট্রে পরিণত করার জন্য আগামী চার বছরে সাধ্যের মধ্যে আমরা সবকিছু করব। এছাড়া, সরকার গঠনে নতুন শরিক দল খোঁজার কথাও উল্লেখ করেন মেরকেল।

উল্লেখ্য, ইউরোপের বিভিন্ন দেশে সম্প্রতি চরম অর্থনৈতিক মন্দা দেখা গেলেও জার্মানির মুক্তবাজার অর্থনীতিকে সুকৌশলে নিয়ন্ত্রণে রাখেন মেরকেল। সামাজিক ও অর্থনৈতিক সংস্কারের পাশাপাশি ঠাণ্ডা মাথায় পরিস্থিতি সামলানোর জন্য মরকেল দেশটিতে ব্যাপক জনপ্রিয়।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।