মালয়েশিয়ায় অমুসলিমদের ‘আল্লাহ’ শব্দ ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা

অমুসলিমরা খৃস্টান ঈশ্বর প্রসঙ্গে কিছু বর্ণনা করতে গেলে ‘আল্লাহ’ শব্দটি ব্যবহার করতে পারবে না বলে রুল জারি করেছে মালয়েশিয়ার আদালত। সোমবার বিবিসি জানায়, ‘সাম্প্রদায়িক বিভ্রান্তি যাতে তৈরি না হয়’ তাই এই রুল জারি করেছে দেশটির আদালত। মালয়ী খৃস্টান সম্প্রদায় বলছে তারা কয়েক দশক ধরে এই শব্দটি ব্যবহার করছেন এবং আদালতের রুলের কারণে তাদের অধিকার লঙ্ঘিত হবে।

সোমবার প্রধান বিচারপতি মোহামেদ আপান্দি আলি বলেন, “আল্লাহ শব্দটি খৃস্টান ধর্মের অবিচ্ছেদ্য অংশ না। এই  শব্দের ব্যবহার সমাজে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করবে।”

২০০৯ সালে মালয়েশিয়ার নিম্ন আদালতের একটি রুলের পরিপ্রেক্ষিতে উচ্চ আদালত এই আইন জারি করেছেন বলে জানায় বিবিসি। ২০০৯ সালের ওই রুলের ফলে  দেশটিতে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে এবং চার্চ ও মসজিদে হামলা চালানো হয়।

২০০৯ সালে নিম্ন আদালত রুল জারি করে, ক্যাথলিক সংবাদপত্র দ্য হেরাল্ড তাদের মালয় সংস্করণে খৃস্টান ঈশ্বরের বর্ণনায় আল্লাহ শব্দটি ব্যবহার করতে পারবে।

ঈশ্বরের বর্ণনায় আল্লাহ শব্দ ব্যবহার নিষিদ্ধের ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছেন হেরাল্ড পত্রিকার সম্পাদক রেভারেন্ড লরেন্স অ্যান্ড্রু। তিনি জানান আদালতের এই সিদ্ধান্ত ‘হতাশা এবং দুঃখজনক’।

অ্যান্ড্রু বলেন, “সংখ্যালঘুদের মৌলিক স্বাধীনতা সম্পর্কিত আইনের উন্নয়নের ক্ষেত্রে এটি একটি পশ্চাদপদ ধাপ।”

বিবিসি জানায়, পত্রিকাটির সমর্থকরা বলছেন ১৯৬৩ সালে মালয়েশিয়া একটি ফেডারেল রাষ্ট্র হিসেবে গঠন করার আগে মালয়ভাষী বাইবেলে খৃস্টান ঈশ্বরের বর্ণনায় আল্লাহ শব্দটি ব্যবহার করা হয়েছে।

তবে বিবিসি এও জানিয়েছে, মুসলমানদের খৃস্টধর্মে ধর্মান্তরিত করতে উৎসাহ দিতেই এই ঈশ্বরের বর্ণনায় আল্লাহ শব্দটি ব্যবহার করা হতে পারে।

সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।