আজ আরব আমিরাতের ৪২তম স্বাধীনতা দিবস

আজ ২ ডিসেম্বর সংযুক্ত আরব আমিরাতের ৪২তম মহান স্বাধীনতা দিবস। একই বছর ১৪ দিনের ব্যবধানে বাংলাদেশ ও আরব আমিরাত স্বাধীন হলেও আমিরাত তাদের সততা, পরিকল্পনা ও কর্মদতার মধ্যদিয়ে আজ বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে সম হয়েছে, সেই সাথে অর্জন করে নিয়েছে ওয়ার্ল্ড এক্সপো ২০২০-এর আয়োজক হিসেবে, তাই এই স্বাধীনতা দিবসটি সংযুক্ত আরব আমিরাত বাসীরা অন্যরকম হিসাবে নিয়েছে। আয়তনের দিক থেকে অনেকটা ছোট হলেও সাজানো-গোছানো এ দেশটি। আবুধাবি, দুবাই, শারজাহ, আজমান, রাস আল খাইম, উম্মে আল কুইন ও ফুজিরা এ সাতটি প্রদেশ নিয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাত গঠিত। ১৯৭১ সালের এ দিনে ব্রিটিশ সা¤্রাজ্য থেকে দেশটি স্বাধীনতা লাভ করে। স্বাধীনতার পর মরহুম প্রেসিডেন্ট শেখ জায়েদ বিন সুলতান আল নাহিয়ানের নেতৃত্বে দেশটির ব্যাপক উন্নয়ন হয়। সড়ক যোগাযোগ অবকাঠামো ও মানবসম্পদ উন্নয়নে দেশটির অবস্থান উল্লেখযোগ্য। স্বাধীনতা লাভের পর মাত্র কয়েক দশকের মধ্যেই উষর মরুভূমিকে রূপ দিয়েছেন সবুজের আঙ্গিনায় অট্টালিকায় সাজানো এক স্বপ্নের রাজ্যে। তার দূরদর্শী চিন্তা, উদার মানসিকতা ও সুপরিকল্পনায় মধ্যযুগীয় অবস্থা থেকে একেবারে উন্নত বিশ্বের জীবনধারায় নিয়ে এসেছেন আমিরাতবাসীদের জীবনযাপন। তার অকান্ত প্রচেষ্টায় আরব আমিরাত এখন সৌন্দর্যের এক অপূর্ব লীলাভূমি। তিনি ছিলেন তার দেশের নাগরিকদের পাশাপাশি প্রবাসীদের জন্য এক মানবরূপী রহমতের ছায়া। সকল প্রবাসীর কাছে তিনি ছিলেন প্রিয়ভাজন এক ব্যক্তিত্ব। প্রবাসীদের প্রতি তার সহানুভূতির দৃষ্টি ছিল সব সময়। প্রজাদের ন্যায় প্রবাসীদের সব ধরনের সমস্যা সমাধানে প্রশাসনের আওতায় ব্যক্তিগতভাবে উদ্যোগ নিতেন তিনি। প্রবাসীদের সামান্যতম কষ্টেও তিনি তাৎণিকভাবে পরিবর্তন করতেন সংসদীয় সংবিধান। প্রবাসীদের েেত্র সর্বদাই অকাতর সহায়তা যুগিয়েছেন। যেন তার দেশের নাগরিকদের পাশাপাশি প্রবাসীদের সুবিধাও ছিল তার স্বপ্ন। এ জন্য যখনই শেখ জায়েদ প্রসঙ্গ আসে, তখন প্রবাসীদের চোখেও শ্রদ্ধা, ভালোবাসা ও ভক্তির ছাপ স্পষ্ট হয়ে উঠে।

দিবসটি উপলে সরকারি ও বেসরকারিভাবে নেয়া হয়েছে ব্যাপক আয়োজন। প্রধান প্রধান সড়ক, সুউচ্চ বিল্ডিং ও স্কুল-কলেজ-মাদরাসাসহ বিশেষ বিশেষ স্থানগুলোতে জাতীয় পতাকা, বেলুন আর হরেকরকম বাতি দিয়ে সাজানো হয়েছে অপূর্ব সাজে। এ দিনটিকে ঘিরে রয়েছে বিমান মহড়া ও আরবদের সংস্কৃতি ঐতিহ্যের নানা রকম অনুষ্ঠানমালা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।