‘বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিশ্ববাসীকে ভাবিয়ে তুলছে’

অ্যাইয়েন্স অফ সাউথ এশিয়ান আমেরিকান লেবার (অ্যাসাল) কনভেনশন কংগ্রেসম্যান গ্রেস মেং বলেছেন, “বাংলাদেশ কঠিন সময় পার করছে। দক্ষিণ এশিয়ার সম্ভাবনাময়ী দেশটি সাম্প্রতিক রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে বিশ্ববাসীকে ভাবিয়ে তুলছে। বাংলাদেশে প্রতিনিয়ত মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে।” দেশটিতে শান্তি ফিরিয়ে আনতে দ্রুত বিশ্ব নেতাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন কংগ্রেসম্যান মেং।

তিনি বলেন, “আমেরিকার অর্থনীতি ও রাজনীতিতে দক্ষিণ এশিয়ানরা অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আগামীতে দক্ষিণ এশিয়ানরাই আমেরিকার নিয়ন্ত্রক হবে।”

গত শনিবার ডিসি ৩৭’র মিলনায়তনে অ্যাসাল’র কনভেনশনে গ্রে মেং এসব কথা বলেন।

অ্যাসাল’র ষষ্ঠ কনভেনশনে মূলধারার রাজনীতিবিদ, অ্যাসাল’র নেতৃবৃন্দসহ দক্ষিণ এশিয়ার পাঁচ শতাধিক অতিথি অংশগ্রহণ করেন।

মুলধারার রাজনীতিবিদ অ্যাসাল’র প্রেসিডেন্ট মাফ মিসবাহ বলেন, “আগামী বছরগুলোতে আমেরিকার মূলধারার রাজনীতিতে দক্ষিণ এশিয়ান কমিউনিটির অবস্থানকে আরো শক্তিশালী করার জন্য অ্যাসাল নেতৃবৃন্দকে কাজ করতে হবে।”

নিউ ইয়র্ক স্টেট’র এএফএল-সিআইও এর প্রেসিডেন্ট মারিও সিল্যান্টো বলেন, “দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশের গার্মেন্টস পণ্য প্রশংসার যোগ্য। তবে এসব মানসম্মত পণ্যের পেছনের শ্রমিকরা চরম অবহেলিত।”

সাম্প্রতিক সময়ে রানা প্লাজার দুর্ঘটনাকে হত্যকাণ্ড উল্লেখ করে মারিও বলেন, “বাংলাদেশের গার্মেন্টস শিল্পকে বিশ্বে প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হলে সর্বপ্রথম শ্রমিক অধিকার নিশ্চিত করতে হবে।”

কনভেশনে মূলধারার রাজনীতিবিদের মধ্যে আরো বক্তব্য দেন নবনির্বাচিত নিউ ইয়র্ক সিটির পাবলিক অ্যাডভোকেট লাতিশিয়া জেম্স, নিউ ইয়র্ক স্টেট কম্পট্রোলার টমাস দিনাপলি, নিউ ইয়র্ক সিটির বিদায়ী কম্পট্রোলার জন ল্যু, অ্যাসেম্বলিম্যান ডেভিড ওয়েপ্রিন, অ্যাসেম্বলিম্যান লুইস সেপুলভিডা (লুইস ভাই), ডিস্ট্রিক্ট ২৪ এর নবনির্বাচিত কাউন্সিলম্যান রোরি ল্যান্সম্যান, ৩২-বিজে ইউনিয়ন’র প্রেসিডেন্ট হেক্টর ফিগোরা, কারেকশনস্ অফিসার্স বেনেভোলেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট নরম্যান সিব্রুকসহ অন্যান্য ইউনিয়নের নেতারা।

কনভেনশন শুরুতে সিনথিয়া হোসাইন এবং মোহাম্মদ হোসাইনের পরিবেশনায় আমেরিকার জাতীয় সঙ্গীত দিয়ে কনভেনশনের পর্দা ওঠে।  এরপর দক্ষিণ আফ্রিকার অবিসংবাদিত নেতা প্রয়াত নেলসন ম্যান্ডেলা স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। কনভেনশনে চেয়ার এবং ট্যাক্সি ওয়ার্কার অ্যালাইয়েন্সের এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর ভৈরবি দেশাই অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন। আরো উপস্থিত ছিলেন অ্যাসাল’র ন্যাশনাল অ্যাক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর শাফিকুর রহমান মিলান, অ্যাসাল’র পলিটিকাল অ্যাকশন ডিরেক্টর এবং নিউ ইয়র্কে মূলধারার রাজনীতিতে পরিচিত মুখ অ্যাটর্নি আলি নাজমি, ব্রুকলিন চ্যাপ্টার প্রেসিডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার এহ্সানুল হক, ব্রঙ্কস চ্যাপ্টার প্রেসিডেন্ট ইঞ্জিনিয়ার আবু শাকুর, কুইন্স চ্যাপ্টার প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ তুহিন, কুইন্স চ্যাপ্টার এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর মোহাম্মদ শাবুল উদ্দিন প্রমুখ।

কনভেনশনে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে প্যানেলভিত্তিক আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে  ‘নিউ ইয়র্ক সিটিতে দক্ষিণ এশিয়ান কমিউনিটির নারীদের ভবিষ্যত’ শীর্ষক প্যানেলের আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ডেমোক্র্যাটিক ডিস্ট্রিক্ট লিডার জেনিফার রাজকুমার, টিডব্লিউ লোকাল ১০০’র পলিটিক্যাল অ্যাকশন কোঅর্ডিনেটর চাস্কা টলেনটিনো এবং ‘ইউনাইট হিয়ার’ লোকাল ১০০ এর পলিটিক্যাল ডিরেক্টর সুজি লোজাডা। ‘ওয়ার্কার রাইটস’ শীর্ষক প্যানেলের আলোচনায় অংশ নেন অ্যাসাল’র ভাইস প্রেসিডেন্ট আবুল বাশার, অ্যাসাল ম্যানহাটন চ্যাপ্টার এর সেক্রেটারি চাক মোহনসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের নেতারা। ‘২০১৩ ইলেকশন থেকে শিক্ষা’ শীর্ষক প্যানেল’র আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন অ্যাসাল’র পলিটিক্যাল অ্যাকশন ডিরেক্টর আলি নাজমি, কোচেয়ার এবং পাবলিক অ্যাডভোকেট ট্রানজিশন কমিটির সদস্য রেশমা সাউজানিসহ সিটির বিভিন্ন নামকরা পলিটিক্যাল কনসালটেন্ট।

বক্তারা সবাই তাদের বক্তব্যে দক্ষিণ এশিয়ান কমিউনিটির উন্নয়নের স্বার্থে অ্যাসাল’র কাজের সমূহ প্রশংসা করেন এবং ভবিষ্যতেও এই ধরনের উন্নয়নমূলক কাজ চালিয়ে যাবার জন্য উৎসাহ প্রদান করেন। এছাড়াও তারা নিউ ইয়র্ক সিটির ২০১৩ নির্বাচনে এ্যাসাল যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে তার জন্য কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।

কনভেনশনে নিউ ইয়র্ক সিটিতে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে অবদান রাখার জন্য অ্যাসাল’র পক্ষ থেকে কয়েকজনকে সন্মানা প্রদান করা হয়। এর মধ্যে ছিলেন, অ্যাসাল’র উইমেন্স কোঅর্ডিনেটর মাজেদা উদ্দিন, বিল দ্যা ব্লাজিও’র ট্রানজিশন টিমের সদস্য প্যাম কোয়াট্রা, ডিসি ৩৭ এর পলিটিক্যাল অ্যাকশন ডিরেক্টর ওয়ান্ডা উইলিয়াম্স। এছাড়াও দক্ষিণ এশিয়ান কমিউনিটিতে কৃত্বিত্বপূর্ণ অবদানের জন্য অ্যাসেম্বলিওম্যান নিলি ডি রজিক এর পক্ষ থেকে কুইন্স চ্যাপ্টার প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ তুহিন এবং কাউন্সিলম্যান ডেনিয়েল ডর্ম এর পক্ষ থেকে সাইটেশন গ্রহণ করেন মোহাম্মদ শাবুল উদ্দিন।

কনভেনশনে আরো বক্তব্য দেন ড. ডানুনজাই শাহা,  আজকাল পত্রিকার প্রকাশক জাকারিয়া মাসুদ জিকু, আমেরিকায় মদিনার আলো’র প্রেসিডেন্ট আলহাজ্ব আব্দুল ওয়াহিদ টুপন, কমিউনিটি লিডার খান শওকত, ফখরুল ইসলাম দেলোয়ার, সালেহ আহমেদ, লোকাল ৬ এর এক্সিকিউটিভ বোর্ড মেম্বার মুনির হোসাইন প্রমুখ।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।