বিশ্বব্যাপী মাতৃমৃত্যুর হার কমেছে, বাড়ছে আমেরিকায়

বিশ্বব্যাপী মাতৃমৃত্যুর হার ১৯৯০ সালের পর থেকে ৪৫ শতাংশ কমেছে।  নতুন পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে এ কথা জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা ‘হু’। বিশ্বে ১৯৯০ সালে ৫ লাখ মায়ের মৃত্যু হলেও ২০১৩ সালে ২ লাখ ৮৯ হাজার মায়ের মৃত্যু ঘটেছে।

প্রসূতি বা সন্তান জন্মের সময় মায়ের মারা যাওয়ার নতুন কারণগুলিও এ প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে।  এ সব মৃত্যুর বেশিরভাগই ঠেকানো সম্ভব উল্লেখ করে ‘হু’ বলেছে, প্রসূতি মায়ের মৃত্যু প্রতিহত করার জন্য এ খাতে আরো বেশি বিনিয়োগ করা প্রয়োজন।

‘হু’ বলেছে, প্রসূতি মায়ের মৃত্যুর হারকে এখনো অনেক বেশি এবং বিশ্বে প্রতি ঘণ্টায় গড়ে ৩৩ জন মা অকালে প্রাণ হারাচ্ছেন। এ ছাড়া, ধনী এবং গরীব দেশগুলোর মাতৃমৃত্যুর হারের ব্যাপক পার্থক্যের বিষয়টি এ প্রতিবেদনে তুলে ধরা হয়েছে। সাহারা মরুভূমির দক্ষিণাঞ্চলীয় দেশগুলোতে ১৫ বছর বয়সী মায়েদের প্রতি ৪০ জনের মধ্যে একজন প্রাণ হারিয়ে থাকে। কিন্তু ইউরোপে এ ক্ষেত্রে প্রতি ৩,৩০০ জনের মধ্যে একজন প্রাণ হারান। গরীব দেশগুলোতে মাতৃস্বাস্থ্য তথা স্বাস্থ্য খাতে আরো বেশি বিনিয়োগের প্রয়োজন রয়েছে বলে ‘হু’ পরামর্শ দিয়েছে।

অবশ্য আমেরিকাসহ কিছু কিছু ধনী দেশে গর্ভবতী মায়ের মৃত্যুর হার বাড়ছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। ডায়াবেটিস, হিভ, ম্যালেরিয়া এবং স্থুলত্বসহ বিরাজমান নানা সংকট মায়ের গর্ভকালীন পরিস্থিতিকে আরো জটিল করে তোলে। আর এ কারণে প্রতি চার জন মায়ের মধ্যে একজন মারা যান।-আইআরআইবি

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।