যে কোন সময় তারেক-মোদির বৈঠক?

 বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান বর্তমানে লন্ডনের বাইরে অবস্থান করছেন। স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য তিনি মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে রয়েছেন।

সূত্র জানায়, সোমবার স্থানীয় সময় বেলা ৩টায় কুয়ালালামপুর বিমান বন্দরে পৌঁছান তিনি। সেখানে তাকে স্বাগত জানান মালয়েশিয়া সরকারের কমিউনিকেশন ও মাল্টিমিডিয়া মন্ত্রণালয়ের মহাসচিব দাতো আবদুর রহিম রাজি এবং তারেক রহমানের ব্যক্তিগত মুখ্য কর্মকর্তা মিয়া নূরউদ্দীন অপু। তারেক রহমানের সঙ্গে আছেন স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমান ও মেয়ে জাইমা রহমান।

 

তারেকের ঘনিষ্ঠ সূত্র থেকে জানা গেছে, বেশকিছু দিন তারেক রহমান লন্ডনের বাইরে থাকবেন। মালয়েশিয়া থেকে সিঙ্গাপুরও যেতে পারেন তিনি। এছাড়া তারেক রহমান ভারতের নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সাক্ষাৎ লাভেরও উদ্যোগ নিয়েছেন। উদ্যোগ সফল হলে চলতি মাসের শেষ সপ্তাহে বা আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করবেন তিনি।

 

সূত্র জানায়, তারেক রহমানের পরামর্শে একটি আন্তর্জাতিক সম্পর্ক উন্নয়ন কমিটি করা হয়েছে। ৬ সদস্যের এই কমিটির প্রধান করা হয়েছে দলের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মহিদুর রহমানকে। কারণ সম্পর্ক উন্নয়নের জন্য তারেক রহমান আন্তর্জাতিক নেতাদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করছেন। সেই যোগাযোগের সমন্বয় করছে এ কমিটি। ঢাকা-যুক্তরাজ্য সম্পর্ক নিয়ে ব্রিটিশ লেবার পার্টির এমপি জিমস ফিজ প্যাট্রিক সম্প্রতি তারেক রহমানের প্রশংসাও করেছেন। ব্রিটিশ পার্লামেন্টের হুইপ লর্লি বার্ডের আমন্ত্রণও পেয়েছেন বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান।

 

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক উন্নয়ন কমিটিই তারেক ও মোদির সাক্ষাৎ নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে বলে জানা গেছে। তবে বিষয়টি এখনই প্রকাশ করতে চায় না ওই কমিটি। কারণ কোনো কারণে বৈঠক না হলে সমালোচনার মুখে পড়তে হবে তাদের। এ প্রসঙ্গে দলের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মহিদুর রহমান লন্ডন থেকে মোবাইল ফোনে বাংলামেইলকে বলেন, ‘এই ধরনের খবর আমার জানা নেই। তারেক-মোদির বৈঠক হলে তো ভালো, হওয়া উচিৎ।’

 

তিনি বলেন, ‘আমি বাইরে ছিলাম এসব বিষয়ে অবগত না, দুইদিন পর যোগাযোগ করলে জানাতে পারবো।’

 

এদিকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেয়ার পরক্ষণেই নরেন্দ্র মোদিকে লন্ডন থেকে অভিনন্দন জানান তারেক রহমান। জবাবে মোদি তাকে ভারত সফরের আমন্ত্রণ জানান বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ হয়। তবে এর সত্যতা নিয়ে রয়েছে নানা প্রশ্ন। অবশ্য তারেক রহমানের অভিনন্দন বার্তা মোদির কাছে পৌঁছে দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেন তারেকের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট হুমায়ুন কবির।

 

উল্লেখ, তারেক রহমান ২০০৮ এর ১২ সেপ্টেম্বর চিকিৎসার জন্য লন্ডন যান। তারপর থেকে স্ত্রী ও কন্যাকে নিয়ে তিনি সেখানেই বাস করছেন। প্রায় পাঁচ বছর পর গত বছরের পহেলা এপ্রিল প্রথম তিনি লন্ডনের বাইরে সৌদি আরব যান ওমরাহ পালনের জন্য।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।