করাচী বিমানবন্দরে সন্ত্রাসী হামলা, নিহত ২৩

পাকিস্তানের করাচী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অজ্ঞাত বন্দুকধারীদের চালানো সন্ত্রাসী হামলায় অন্তত ১৩ জন প্রাণ হারিয়েছেন। এ সময় ১০ বন্দুকধারীও নিহত হন। রবিবার মধ্যরাতে নিরাপত্তা বাহিনীর পোশাক পরে বন্দুকধারীরা দেশটির ব্যস্ততম এই বিমানবন্দরে হামলা চালায়।

হামলাকারীরা ছাড়া নিহতদের বেশিরভাগই বিমানবন্দরের নিরাপত্তারক্ষী এবং এয়ারলাইন্সের কর্মী বলে জানা গেছে। এছাড়া আহত হয়েছে অন্তত ১৪ জন। হামলাকারীরা বিমানবন্দরের নিরাপত্তা রক্ষীদের লক্ষ্য করে গ্রেনেড এবং গুলি ছুড়ে হামলা শুরু করে। এরপর বিমানবন্দর এলাকায় গোলাগুলি ও বিস্ফোরণের শব্দ হতে থাকে।

পরে সেনাবাহিনী ও পুলিশ এখন বিমানবন্দরটি ঘিরে ফেলে এবং বিমানবন্দরের আশেপাশের সবগুলো সংযোগ সড়ক বন্ধ করে দেয়। পরে অভিযান চালিয়ে বিমানবন্দরের নিয়ন্ত্রণ নেয়া হয়।

জিন্নাহ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পুরনো টার্মিনালে অতর্কিতেই শুরু হয় বিস্ফোরণ ও গোলাগুলি। হামলার পরপরই দেশটির আর্মি কমান্ডোরা বিমান বন্দরটি ঘিরে ফেলে এবং আক্রমণকারীদের সঙ্গে গোলাগুলি শুরু হয়।

পাকিস্তানের ডন পত্রিকা জানায়, ফক্কার গেট এলাকা দিয়ে আক্রমণকারীরা বিমানবন্দরে অনুপ্রবেশ করেছিল। বলা হচ্ছে, আক্রমণকারীরা কাঁটাতারের বেড়া কেটে সেখানে প্রবেশ করেছিল। হামলাকারীদের কয়েকজন একটি বিমানের ভেতরেও ঢুকে যেতে সমর্থ্য হয়েছে।

দূর থেকে বিমানবন্দরে আগুনের শিখা দেখা যায়। বিমানবন্দরের ভেতরে একটি প্লেনে আগুন জ্বলতে দেখেছেন বলেও কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান। এই টার্মিনালটি বাণিজ্যিক ফ্লাইটের জন্য ব্যবহৃত হতো না। এখানে কেবল কার্গো পরিবহন এবং ভিআইপি ফ্লাইট চলাচল করতো। এ ঘটনার পর ইসলামাবাদ ও লাহোর বিমানবন্দরে রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।