আইএসের ভয়ে তুরস্কে আশ্রয় নিয়েছে ৪৫ হাজার কুর্দি: তুর্কি উপ-প্রধানমন্ত্রী

বঘোষিত ইসলামিক স্টেট (আইএস) যোদ্ধাদের হামলা থেকে বাঁচতে প্রায় ৪৫ হাজার সিরীয় কুর্দি তুরস্কে আশ্রয় নিয়েছে। আইএস যোদ্ধারা সিরিয়ায় কুর্দি অধ্যুষিত বহু এলাকা দখলে নেয়ায় তারা তুরস্কে আশ্রয় নেয় বলে জানিয়েছেন তুর্কি উপ-প্রধানমন্ত্রী নুমান কুরতুলমুস। সিরিয়ার সীমান্তবর্তী আইন আল-আরব শহর যা কুর্দিদের কাছে কোবানি নামে পরিচিত, ওই এলাকায় আইএস যোদ্ধাদের বড় ধরনের হামলার আশঙ্কায় এসব বেসামরিক কুর্দি তুরস্কে আশ্রয় নেয়।

 

কুরতুলমুস বলেন, আকাকেলে থেকে মুরসিতপিনার পর্যন্ত ৩০ কিলোমিটার সীমান্তের আটটি প্রবেশপথ খুলে দিলে কেবল শুক্রবার একদিনেই প্রায় ৪৫ হাজার কুর্দি সীমান্ত অতিক্রম করে তুরস্কে প্রবেশ করে। সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় সীমান্তবর্তী শহর কোবানি কৌশলগত দিক থেকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আইএস যোদ্ধারা শহরটি দখলে এগিয়ে আসতে থাকায়, সেখানে বড় ধরনের হত্যাযজ্ঞের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

 

এদিকে, কোবানি শহর রক্ষার দায়িত্বে থাকা কুর্দি বাহিনীর প্রধান ইসমাত আল-শেখ বলেছেন, শনিবার শহরের উত্তর এবং পূর্বাঞ্চলীয় এলাকায় সংঘর্ষ অব্যাহত ছিল। আইএস যোদ্ধারা রকেট, আর্টিলারি, ট্যাঙ্ক এবং সাঁজোয়া যান নিয়ে রাতভর শহরের দিকে এগোতে থাকে। বর্তমানে তারা শহরের ১৫ কিলোমিটারের মধ্যে অবস্থান নিয়েছে। সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে, রাতভর সংঘর্ষে অন্তত ১৮ জন আইএস যোদ্ধা নিহত হয়েছে। এ সময় তারা শহরের আশপাশে আরো বেশ কয়েকটি এলাকা দখলে নেয়।

 

অন্যদিকে, ইরাকি কুর্দি নেতা মাসুদ বারজানি কোবানি শহরে আইএস যোদ্ধাদের অগ্রযাত্রা প্রতিহত এবং কুর্দিদের রক্ষায় আন্তর্জাতিক হস্তক্ষেপ চেয়েছেন। তিনি বলেছেন, আইএস যোদ্ধারা যেখানেই থাকুক তাদেরকে আঘাত করতে হবে এবং ধ্বংস করে দিতে হবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।