পেশোয়ারে স্কুলে তালেবান হামলা ।। শতাধিক শিশুসহ নিহত ১২৬, পাঁচ জঙ্গিকে হত্যা

পাকিস্তানের পেশোয়ারে সেনাবাহিনী পরিচালিত  স্কুলে তালেবান জঙ্গিদের পৈশাচিক হামলায় শতাধিক শিশুসহ ১২৬ জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরো শতাধিক শিশু। তাদের অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক। এদিকে জিম্মি উদ্ধার অভিযানের সময় নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে  গুলিবিনিময়ে পাঁচ জঙ্গি নিহত হয়েছে।  এখনো সেখানে শ দুয়েক শিক্ষার্থী জিম্মি। অনেক শিক্ষার্থীকে ভেতরে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখা যায়। জিম্মিদের উদ্ধারে নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযান চলছে।
হামলার ঘটনার পর সেখানে ছুটে যান দেশটির প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। পেশোয়ারে তিন দিনের শোক ঘোষণা করা হয়েছে। পরে প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ এক বিবৃতিতে বলেন, “আমরা অবশ্যই দুষ্কৃতিকারীদের ছাড় দেব না। তবে এর আগে শিশুদের নিরাপদে মুক্ত করাকে আমরা অগ্রাধিকার দিচ্ছি।”

 

মঙ্গলবার সকালে এ হামলার সময় জঙ্গিরা সেনা পোশাকে স্কুলে ঢোকে। তালেবান এ হামলার দায় স্বীকার করেছে। উত্তর ওয়াজিরিস্তানে সেনাবাহিনীর অব্যাহত হামলার প্রতিবাদে এ পাল্টা হামলা চালানো হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সেনাবাহিনী নিয়ন্ত্রিত ওই আর্মি পাবলিক স্কুলে ছয়জন বন্দুকধারী ঢোকে বলে সেনাবাহিনী সূত্র জানায়। আর পুলিশ জানায়,  স্কুলের দেয়াল ডিঙিয়ে জঙ্গিরা সেখানে প্রবেশ করে। তাদের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গুলিবিনিময় চলছে।”

 

হাসপাতালের কর্মকর্তা ইজাজ খান জানান, আহতদের অনেকের চিকিৎসা ও অপারেশন চলছে। অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক। রয়টার্সের সঙ্গে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে স্কুলটির এক শিক্ষক বলেন, “স্কুলে পরীক্ষা নেয়ার সময়টাতেই হামলা চালায় বন্দুকধারীরা।” জঙ্গিরা সেখানে পাঁচ শতাধিক শিক্ষার্থীকে জিম্মি করেছে।

 

 

ঘটনাস্থলে উপস্থিত রয়টার্সের এক সাংবাদিক জানান,  সেনারা চারদিক থেকে স্কুলটি ঘিরে রেখেছে।

বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, স্কুলটিতে তালেবান জঙ্গিরা হামলা চালিয়েছে। সেনাসদস্যরা স্কুলটির শ্রেণীকক্ষ এক এক করে মুক্ত করা শুরু করেছেন।

দুপরের দিকে খাইবার প্রদেশের মন্ত্রী পারভেজ খাত্তাক জানিয়েছিলেন, হামলায় ৮৪ শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে। হামলাকারীরা সেনাদের পোশাক পরে স্কুলে প্রবেশ করে। মোট নিহতের সংখ্যা ১০৪।

খাইবার প্রদেশের তথ্যমন্ত্রী শাহ ফরমান জানান, সেনারা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালাচ্ছে।সূত্র: ডন ও ওযেবসাইট।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।