ইন্দোনেশিয়া ও থাইল্যান্ডে আট শতাধিক অভিবাসী উদ্ধার

ইন্দোনেশিয়া ও থাইল্যান্ডের উপকূল থেকে শুক্রবার সকালে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের ৮০০ এর অধিক অভিবাসীকে উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে ইন্দোনেশিয়ার আচেহ উপকূলে গিয়ে ডুবতে বসা এক নৌকা থেকে ৭০০ শতাধিক অভিবাসীকে উদ্ধার করা হয়। স্থানীয় সময় শুক্রবার ভোর ৫টার দিকে সুমাত্রার পূর্ব উপকূলের জেলেরা তাদের উদ্ধার করে তীরে নিয়ে যান।

যাদের উদ্ধার করা হয়েছে তাদের মধ্যে ২১০ জন রোহিঙ্গা এবং ৩৯৫ জন বাংলাদেশি। এদের আটজনের অবস্থা শঙ্কটাপন্ন।

তবে আচেহর লাংসা শহরের ত্রাণ ও উদ্ধার বিভাগের কর্মকর্তা খাইরুল নোভা বলেন, ‘সর্বশেষ যে খবর আমরা পেয়েছি, তাতে ওই নৌকায় ৭৯৪ জন ছিল। তাদের উদ্ধার করে প্রাথমিকভাবে বন্দর সংলগ্ন একটি ওয়্যারহাউজে রাখা হয়েছে।’

আচেহ উপকূলে পৌঁছানোর পর নৌকাটি ডুবতে শুরু করলে স্থানীয় জেলেরা এগিয়ে যান এবং আরোহীদের উদ্ধার করে তীরে নিয়ে আসেন বলে সুনারিয়া জানান।

অন্য আচেহতে একটি ছোট নৌকা থেকে ৪৭ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া থাইল্যান্ডের নৌবাহিনী ফাং গা প্রদেশের উপকূল থেকে ১০৬ জন উদ্ধার করেছে যাদের মধ্যে ১৫ জন নারী ও দুটি শিশু রয়েছে।

মিয়ানমারের ১৩ লাখ রোহিঙ্গা মুসলিমের বসবাস। তারা সেখানকার সংখ্যাগরিষ্ঠ বৌদ্ধদের দ্বারা ভয়াবহ নিপীড়নের শিকার তারা। গত তিন বছরে ১ লাখ ২০ হাজার রোহিঙ্গা মিয়ানমার ছেড়ে নৌকায় অন্য দেশে পাড়ি দিয়েছেন।

এদিকে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুন এবং যুক্তরাষ্ট্র সরকার এসব অভিবাসীদের জীবন রক্ষায় থাইল্যান্ড, ইন্দোনেশিয়া এবং মালয়েশিয়া সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।