সিরিয়ায় কুর্দিদের হটিয়ে ‘কয়েকটি গ্রাম’ দখলে নিয়েছে তুর্কি বাহিনী

সিরিয়ার কুর্দি সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযানের তৃতীয় দিনে দেশটির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় কয়েকটি গ্রাম দখলে নিয়েছে তুর্কি বাহিনী।সোমবার তুর্কি গণমাধ্যমগুলোর বরাত দিয়ে বিবিসির খবরে এই তথ্য জানানো হয়েছে।

 

সোমবার সিরীয় বিদ্রোহীদের সঙ্গে নিয়ে দেশটির আফরিন অঞ্চলের গ্রামগুলো দখলে নেয় তুর্কি সেনারা। তবে কুর্দি যোদ্ধারা জানিয়েছে, দুটি গ্রাম পুনর্দখলে নিয়েছে তারা।এর আগে আফরিন থেকে কুর্দিশ পিপলস প্রোটেকশন ইউনিটের (ওয়াইপিজে) সদস্যদের ধরা হবে- তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগানের এমন ঘোষণার পরই দেশটির সেনারা সেখানে বিমান হামলা শুরু করে।

 

এদিকে, চলমান এই অভিযান নিয়ে রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনায় তুরস্ক পিছ পা হবে না বলে জানিয়েছেন এরদোগান।সোমবার সরাসরি সম্প্রচারিত একটি টেলিভিশন সাক্ষাতকারে এরদোগান বলেন, ‘আফরিনকে সন্ত্রাসী মুক্ত করতে আমরা দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।’তিনি আরো বলেন, ‘আমরা পিছ পা হব না। বিষয়টি নিয়ে আমরা আমাদের রাশিয়ার বন্ধুদের সঙ্গে কথা বলব। এ নিয়ে আমাদের একটি চুক্তি রয়েছে।’

 

এদিকে, হামলা না করতে তুরস্ককে হুঁশিয়ারি দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। কিন্তু মার্কিন হুঁশিয়ারি উপেক্ষা করেই ‘অপারেশন অলিভ ব্রাঞ্চ’ নামের ওই অভিযান শুরু করে তুর্কি সেনারা।মার্কিন হুঁশিয়ারির নিন্দাও জানিয়েছে দেশটির। ১৫৩টি কুর্দি ঘাঁটি লক্ষ্য করে হামলা চালাচ্ছে তুর্কি সেনারা। হামলা শুরুর পর আফরিন থেকে সেনা সরিয়ে নিয়েছে রাশিয়া।আইএস বিরোধী যুদ্ধে ওয়াইপিজেকে সবচেয়ে সক্রিয় বাহিনী মনে করে যুক্তরাষ্ট্র। অপরদিকে ন্যাটোতে যুক্তরাষ্ট্রের ঘনিষ্ঠ মিত্র তুরস্ক।

 

গত শনিবার তুর্কি সরকার নিজের সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোয় নিরাপত্তা ও স্থিতি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে পার্শ্ববর্তী আফরিন প্রদেশে তাদের ভাষায় সন্ত্রাসী পিকেকে, পিওয়াইডি ও আইএস নির্মূলে স্থল অভিযান শুরু করে। তুরস্ক তাদের এই অভিযানের নাম দিয়েছে অপারেশন ‘অলিভ ব্রাঞ্চ’।তুরস্কের দাবি অনুযায়ী, তুর্কি সরকার আন্তর্জাতিক আইন ও জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের সিদ্ধান্ত মাফিক সন্ত্রাস মোকাবেলা ও আত্মরক্ষার অধিকার থেকেই এ আক্রমণ চালাচ্ছে। নাগরিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে যেকোনো পদক্ষেপ নেবে না বলেও জানায় তুরস্ক প্রশাসন।

 

শনিবার থেকে শুরু হওয়া বিমান হামলায় বেশ কয়েকজন বেসামরিক লোকসহ মোট ৯ জন নিহত হয়েছে। তুরস্ক দাবি করেছে, স্থলপথে সেনাবাহিনী হামলার আগে ১৫০ টিরও বেশি বিমান হামলা চালানো হয়েছে। রবিবারও ৪৫টি বিমান হামলা চালায় তারা।তুরস্কে নিষিদ্ধ ঘোষিত কুর্দি বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন কুর্দিস্তান ওয়ার্কার্স পার্টির (পিকেকে) সঙ্গে সিরিয়ান কুর্দি সংগঠন ওয়াইপিজির সংশ্লিষ্টতা আছে বলে দাবি করে আঙ্কারা প্রশাসন। সম্প্রতি তুরস্কে পিকেকে মাথাচড়া দিয়ে উঠলে তাদের দমনে বিভিন্ন অভিযানে নামে দেশটি।