‘গাজা অবরোধ মানবতার জন্য লজ্জা, নেতানিয়াহু দুপক্ষের জন্যই বাজে লোক’

ইসরাইলের গাজা অবরোধ সত্যিকারার্থে ‘মানবতার জন্য একটি লজ্জা’ বলে মন্তব্য করেছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের এক সাবেক শীর্ষ কর্মকর্তা।

‘ইসরাইল প্রতিদিনই একের পর এক অপরাধ করে যাচ্ছে। ১৯৬৭’র অঞ্চলগুলোর উপর দীর্ঘ ৫০ বছরেরও বেশি সময় ধরে দখলদারিত্বের জন্য ইসরাইলকে অবশ্যই আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের সম্মুখীন করতে হবে’, বলেছেন ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট লুইসা মরগানতিনি। তুরস্কের আনাদোলু নিউজ এজেন্সিকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে তিনি এসব কথা বলেন। মরগানতিনি বলেন, তিনি বাস্তবিকভাবে আশা করেন আন্তর্জাতিক মহল ইসরাইলের ব্যাপারে একটি মতৈক্যে পৌছাবে এবং গাজায় মানুষ হত্যা বন্ধ করবে।

তিনি জোর দিয়ে বলেন, গাজায় যেভাবে প্রতিনিয়ত মানুষ হত্যা করা হচ্ছে এবং যেভাবে ঘর-বাড়িগুলো ধ্বংস করা হচ্ছে এটা কখনো আনন্দের হতে পারে না।

গাজার বর্তমান অবস্থা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের জন্য লজ্জার যারা সবসময় ইসরাইলকে ভিকটিম হিসেবেই দেখেছে এবং এর অপরাধগুলোকে দেখেতে চায় নি, তিনি বলেন।

মরগানতিনি আশা প্রকাশ করেন আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় তাদের দৃষ্টিভঙ্গিতে পরিবর্তন আনবে এবং ফিলিস্তিনের জনগণের ভোগান্তি বুঝার চেষ্টা করবে। আর এর মাধ্যমে ফিলিস্তিনের জনগণের স্বাধীনতা এবং বিচার নিশ্চিত হবে।

‘আমি দৃঢ়ভাবে মনে করি ফিলিস্তিনি জনগণকে ধ্বংস ও বিচ্ছিন্ন করার যে খেলায় মেতে উঠেছে ইসরাইল তা বন্ধ করার জন্য ফিলিস্তিনি জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হওয়া উচিত’।

‘ইসরাইলের সমাজ দিন দিন কঠোর জাতীয়তাবাদী, বর্ণবাদী ও জাতিবিদ্বেষী হয়ে উঠছে’।

‘ফিলিস্তিন একটাই এবং এটি একত্রিত হতে হবে’।

তিনি আরো বলেন, এটা শুধু আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের নয়, সবার দায়িত্ব এবং এ দায়িত্ব ফিলিস্তিনি জনগণেরও।

নেতানিয়াহু দুপক্ষের জন্যই মন্দলোক
মধ্যপ্রাচ্যের সঙ্কটে ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনজামিন নেতানিয়াহুর ভ্রষ্ট ভূমিকার জন্য সমালোচনা করে মরগানতিনি বলেন, আমি মনে করি নেতানিয়াহু ইসরাইল ও ফিলিস্তিন দুপক্ষের জন্যই নিতান্ত বাজে লোক।

নেতানিয়াহুর ক্ষমতাচ্যুতি পরিস্থিতিকে উন্নতি করবে কি না এ ব্যাপারে নিশ্চিত না হলেও মরগানতিনি মনে করেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের উচিত এখনই হস্তক্ষেপ করা। তিনি বলেন, ‘অনেক হয়েছে। এখন ফিলিস্তিনিদের স্বাধীন হওয়ার সময় এসেছে’।

তিনি এও বলেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ইসরাইলের যে সমস্ত জনগণ ঔপনিবেশিকতার বিরোধী এবং যারা বলে ‘দখলদারিত্ব আমাদের সকলকে ধ্বংস করে দিচ্ছে’ তাদেরকেও কথা বলার সুযোগ করে দিতে হবে।