নাঙ্গলকোটে ইউপি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে সন্ত্রাসী হামলায় ছাত্রলীগ নেতাসহ আহত ৪

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটের পেরিয়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির মজুমদারের বিরুদ্ধে দুস্তদের ঘর দেয়ার কথা বলে টাকা আত্মসাত করার প্রতিবাদ করে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে প্রচার করার অভিযোগ এনে চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছে। হামলায় ৪ জন রক্তাক্ত জখমসহ ৬ জন আহত হয়। গত সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। হামলায় আহতরা হলেন পেরিয়া ইউনিয়ন আ’লীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক বড়সাঙ্গিশ্বর গ্রামের মোখলেছুর রহমান মজুমদারের ছেলে মোশারফ হোসেন মজুমদার (৬০), তার ছেলে বিশ্ব বিদ্যালয় শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ নেতা আমজাদ হোসেন জুয়েল (২৫), মোশারফ হোসেন মজুমদারের ভাই ফারুক আহম্মেদ মজুমদারের স্ত্রী মীর মোর্শেদা বেগম (৪৮), তার ছেলে মাহতাব উদ্দিন ফাহিম (২০), বিশ্ব বিদ্যালয় শিক্ষার্থী মোহাম্মদ আলী মিঠু (২৬) ও মোসলেহ উদ্দিন মুন্না (২৩)। আহতদের নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লে´ ও কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আমজাদ হোসেন জুয়েল ও মোহাম্মদ আলী মিঠুর অবস্থা আশঙ্কা জনক হওয়ায় তাদেরকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।


অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, পেরিয়া ইউনিয়র চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির মজুমদারের বিরুদ্ধে ইউনিয়নের ৫০-৬০ জন হত দরিদ্রকে ঘর করে দেয়ার কথা বলে তাদের থেকে ১০ হাজার টাকা করে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ উঠে। ভ‚ক্তভুগীরা ৪ বছরেও ঘর না পেয়ে গত কিছু দিন যাবৎ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও অনলাইন টেলিভিশনে ভিডিও বক্তব্যের মাধ্যমে প্রতিবাদ জানায়। বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার হওয়া নিয়ে চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির ইউনিয়ন আ’লীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক মোশারফ হোসেন মজুমদারের পরিবার ও তার ভাতিজাদের দায়ী করে। এর জেরে চেয়ারম্যান ক্ষিপ্ত হয়ে সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে একদল সন্ত্রাসী নিয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র দিয়ে তাদের উপর হামলা করে।


পরে নাঙ্গলকোট থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আহত দু’জনকে উদ্ধার করে নাঙ্গলকোট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। গুরুতর আহতদের কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ব্যাপারে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।


এ ব্যাপারে অভিযুক্ত পেরিয়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির মজুমদার বলেন, এ ঘটনায় আমার ৩ জন আহত হয়েছে। আহতদের কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।


এ ব্যাপারে নাঙ্গলকোট থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, এ ঘটনায় অভিযোগ করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।