কর্মসূচি স্থগিত মেডিকেলে ভর্তিচ্ছুদের - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

কর্মসূচি স্থগিত মেডিকেলে ভর্তিচ্ছুদের



(খবর তরঙ্গ ডটকম)

ঢাকা, সেপ্টেম্বর ০২ (খবর তরঙ্গ ডটকম)- প্রচলিত পদ্ধতিতে  স্বাস্থ্যমন্ত্রী আ ফ ম রুহুল হকের সঙ্গে বৈঠকে মেডিকেলে শিক্ষার্থী ভর্তির আশ্বাস পেয়ে আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিত করেছে ভর্তিচ্ছুরা। শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন  ভর্তি প্রক্রিয়া পরিবর্তনের বিরুদ্ধে হাই কোর্টে রিট আবেদনকারী আইনজীবী ইউনুস আলী আকন্দ তার আবেদন প্রত্যাহার করে নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন।স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে আন্দোলনকারী ভর্তিচ্ছুদের সঙ্গে বৈঠক করে রোববার সকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী আ ফ ম রুহুল হক সাংবাদিকদের বলেন, মামলা তুলে নিলে প্রচলিত পদ্ধতিতে ভর্তি করা হবে।
তবে কাজ এগিয়ে রাখার জন্য শিগগিরই আবেদনপত্র সংগ্রহ শুরু হবে বলে তিনি জানান।

দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে ভর্তিচ্ছুদের এক সংবাদ সম্মেলনে তাদের প্রতিনিধি মোমিনুল ইসলাম বলেন, একটু দেরিতে হলেও মন্ত্রী আমাদের সঙ্গে কথা বলেছেন। তার পদক্ষেপকে ইতিবাচক মনে করে আমরা আমাদের কর্মসূচি স্থগিত করছি।
গত ১২ অগাস্ট সরকার ভর্তি পরীক্ষা বাতিল করে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএর ভিত্তিতে মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজে শিক্ষার্থী ভর্তির ঘোষণা দিলে আন্দোলন শুরু করে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা।
ইউনূস আলী আকন্দ নামে এক অভিভাবক সরকারের ঘোষণার পর পুরনো পদ্ধতিতে ভর্তি চেয়ে হাই কোর্টে একটি রিট আবেদন করেন, ওই রিট আবেদনে গত ২৭ অগাস্ট হাই কোর্টের একটি বেঞ্চ বিভক্ত আদেশ দেয়। এখন অন্য বেঞ্চে এর শুনানি হবে।

এছাড়া আরেকটি রিট আবেদনে একটি রুল জারি করে হাইকোর্ট। পরীক্ষা পদ্ধতি পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না- তা জানতে চাওয়া হয় ওই রুলে।

মন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে ওই মামলা প্রত্যাহার করা হবে কি না জানতে চাইলে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধি মোমিনুল ইসলাম সংবাদ সম্মেলনে বলেন, যে কেউ চাইলে জনস্বার্থের যে কোনো বিষয়ে রিট করতে পারেন। ইউনুস আলীও করেছেন।

তবে আমরা তাকে ওই রিট আবেদন প্রত্যাহার করতে অনুরোধ করেছি। তিনি তা করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

সকালের বৈঠকে শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে অংশ নেন আটজন প্রতিনিধি, যাদের মধ্যে পাঁচজন সরকারের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে আন্দোলনে অংশ নিচ্ছেন। বাকি তিনজনের অবস্থান পরীক্ষা ছাড়াই মেডিকেলে ভর্তির পক্ষে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী রুহুল হক, প্রতিমন্ত্রী মুজিবুর রহমান ফকির ছাড়াও আলোচনায় অংশ নেন বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব ডা. সারফুদ্দিন আহমেদ। এছাড়া সুশীল সমাজের পক্ষে প্রতিনিধি ছিলেন কলাম লেখক সাংবাদিক সৈয়দ আবুল মকসুদ।

মেডিকেল ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থী মঞ্চ ব্যানারে আন্দোলন চালিয়ে আসা ভর্তিচ্ছুরা শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যে এক নাগরিক সমাবেশে জানায়, স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনায় বসতে তাদের আপত্তি নেই। তবে সেই আলোচনা প্রকাশ্যে হতে হবে।

তাদের ওই ঘোষণার পরই স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পক্ষ থেকে বৈঠকের ব্যবস্থা করা হয়।

সরকার গত বছর থেকে বাংলাদেশের সব ধরনের মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজগুলোতে যৌথভাবে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া শুরু করে। সারাদেশের ২০টি কেন্দ্রে ৪০ হাজারের বেশি ছাত্র গত বছর পরীক্ষায় অংশ নেয়। তখন পরীক্ষায় অংশগ্রহণের ন্যূনতম যোগ্যতা ছিল মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার যে কোনো একটিতে জিপিএ ৩.৫ সহ মোট জিপিএ ৮।

বাংলাদেশের সবগুলো মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজ মিলিয়ে মোট ৮ হাজার ৪৯৩টি আসন রয়েছে। এর মধ্যে ২২টি সরকারি মেডিকেল কলেজে আসন সংখ্যা ২ হাজার ৮১১টি। আর ৫৩টি বেসরকারি মেডিকেলে ৪ হাজার ২৪৫ জন শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ রয়েছে।

এছাড়া ৯টি পাবলিক  ডেন্টাল কলেজ ও মেডিকেল কলেজের ডেন্টাল ইউনিটে ৫৬৭টি আসন রয়েছে।


পূর্বের সংবাদ
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০