বিএনপির ৬ষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিল ১৯ মার্চ

প্রধান বিরোধী দল বাংলাদেশ জাতিয়তাবাদী দল (বিএনপি) ‘র ৬ষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিল আসছে ১৯ মার্চ বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে। কাউন্সিল সফল করতে দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে প্রধান করে একটি সমন্বয় কমিটি ও ১২টি উপকমিটি করা হয়েছে। বিএনপির দায়িত্বশীল সূত্র এ খবর নিশ্চিত করেছে। দলীয় সূত্রমতে, এরইমধ্যে ৭৫টি সাংগঠনিক জেলায় কেন্দ্র থেকে নোটিশ পাঠানো হয়েছে। দলীয় গঠনতন্ত্র সংশোধনের জন্য কাউন্সিলরদের প্রস্তাবনা থাকলে তা যথাসময়ে পাঠাতে বলা হয়েছে।

১২টি উপ-কমিটির মধ্যে দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর অভ্যর্থনা কমিটির প্রধান। স্বেচ্ছাসেবক ও শৃঙ্খলা কমিটিতে স্থায়ী কমিটির সদস্য আ স ম হান্নান শাহ, অর্থ বিষয়ক কমিটিতে উপদেষ্টা চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুল আউয়াল মিন্টু, ব্যবস্থাপনা উপকমিটিতে স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, প্রচার বিষয়ক উপকমিটিতে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করছেন।

আপ্যায়নে ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা, গঠনতন্ত্র সংবিধান সংক্রান্ত কমিটিতে স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলাম, প্রকাশনায় ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, ড্রাফট কমিটিতে স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, দপ্তর ও যোগাযোগ বিষয়ক কমিটিতে যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ, জরুরি চিকিৎসা বিষয়ক উপ-কমিটিতে চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ডা. এজেড এম জাহিদ হোসেন ও সাংস্কৃতিক বিষয়ক উপকমিটিতে সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক গাজী মাজহারুল আনোয়ার দায়িত্বে আছেন।

বিএনপি সূত্র জানায়, কাউন্সিলের সমন্বয় করার জন্য নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি মনিটরিং সেল গঠন করা হয়েছে।

এরইমধ্যে সারাদেশের ৭৫টি সাংগঠনিক জেলার কাউন্সিলরদের কাছে বিভিন্ন তথ্য জানতে চেয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। এবার কাউন্সিলরদের সংখ্যা বাড়বে এবং নিষ্ক্রিয় অনেকেই বাদ পড়বেন বলে দাবি করে সূত্রটি।

এর আগে বিএনপি চেয়ারপারন খালেদা জিয়া দলের নীতিনির্ধারকদের সঙ্গে বৈঠক করে ৯ মার্চ জাতীয় কাউন্সিল করার সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু এ সময়ের মধ্যে স্থান বরাদ্দ না পাওয়ায় ১৯ মার্চ কাউন্সিল করার সিদ্ধান্ত হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।