আজ বিশ্ব মা দিবস

শত বছর আগে ১৯০৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রের এক মা-আনা মারিয়া রিভস জার্ভিস তার সানডে স্কুলে প্রথম এ দিনটি মাতৃদিবস হিসেবে চালু করেন। ১৯১৪ সালের ৮ মে মার্কিন কংগ্রেস মে মাসের দ্বিতীয় রবিবারকে ‘মা দিবস’ হিসাবে ঘোষণা করে। এরই ধারাবাহিকতায় দিবসটি এখন বিশ্বের এক শতের বেশী দেশে ‘বিশ্ব মা দিবস’-এর মর্যাদায় পালিত হয়। তবে বেশিরভাগ দেশে মে মাসের
দ্বিতীয় রোববার দিনটি পালিত হয়। উদযাপনের জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে বড়দিন এবং ভালোবাসা দিবসের পর মা দিবসের অবস্থান। সাধারণত সাদা কারনেশন ফুলকে মা দিবসের প্রতীক  বিবেচনা করা হয়। এই দিনে সন্তানরা ফুল এবং নানা সামগ্রী উপহার দিয়ে এবং বাসায় কিংবা রেস্টুরেন্টে মায়ের সাথে খাবার খেয়ে, অনেকেই ছুটি নিয়ে মায়ের একান্ত সান্নিধ্যে দিনটি কাটায় । মাকে শ্রদ্ধা আর ভালবাসা দেখাতে নির্দিষ্ট দিনক্ষণ ঠিক করে নেয়ার যুক্তি অনেকের কাছেই । সে ভাবে গ্রহণযোগ্য না হলেও অনেকেই মনে করেন মাকে সম্মান দেখাতে  আন্তর্জাতিক মা দিবসের গুরুত্ব রয়েছে। মাকে স্মরণ করে জগদ্বিখ্যাত মনীষী আব্রাহাম লিংকন বলেছিলেন, আমি যা কিছু পেয়েছি, যা কিছু হয়েছি, অথবা যা হতে আশা করি তার জন্য আমি আমার মায়ের কাছে ঋণী।জগতে মায়ের মতো এমন আপনজন আর কে আছে! তাই প্রতি বছর এই দিনটি স্মরণ করে দেয় প্রিয় মায়ের মর্যাদার কথা। সর্বশেষ মনে পড়ে যায় নেপোলিয়ানের সেই বিখ্যাত উক্তির কথা :- আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও, আমি তোমাকে একটি শিক্ষিত জাতি দেবো।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।