সংসদে ফিরছেন বিরোধীদল বিএনপি

আগামী  ৩ জুন জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশন শুরু হচ্ছে। এই অধিবেশনে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের শেষ বাজেট পেশ করা হবে। স্পিকার এই বাজেট অধিবেশনে বিরোধী দল বিএনপিকে যোগ দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে। স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর আহ্বানকে বিএনপির সংসদ সদস্যরা ইতিবাচকভাবে দেখছেন। কোনো অঘটন না ঘটলে বাজেট অধিবেশনে যোগ দেয়ার বিষয়টি তারা গুরুত্বের সঙ্গে ভাবছেন। অবশ্য এই অধিবেশনে বিরোধী দলের সংসদ সদস্যদের যেতেই হচ্ছে। কারণ সংসদ সদস্য পদ টিকিয়ে রাখতে ৯০ কার্যদিবসের বাধ্যবাধকতায় বিরোধী অনেক এমপি হুমকির মুখে রয়েছেন। বিএনপির সংসদীয় কমিটির সূত্রে জানা গেছে, বিরোধীদলীয় নেতাদের অনেকেরই  ইতোমধ্যে সংসদে একটানা অনুপস্থিতি ৮২ কার্যদিবস ছাড়িয়ে গেছে। ফলে সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা রক্ষার খাতিরে তারা আগামী অধিবেশনে যোগ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির এক সংসদ সদস্য আরটিএনএন- কে বলেন, ‘সংসদের সদস্য পদ টিকিয়ে রাখা বড় কথা নয়, সংসদ এবং জনগণের প্রতি দায়বদ্ধতার জন্য আমরা সংসদে যাচ্ছি। আর এ ব্যাপারে দলীয় চেয়ারপারসন সংসদীয় কমিটিকে সবুজ সঙ্কেত দিয়ে রেখেছেন।’

সংরক্ষিত আসনে বিএনপির এক সংসদ সদস্য আরটিএনএন- কে বলেন, ‘নবনির্বাচিত স্পিকারের আহ্বানের প্রতি সন্মান জানাতেই আসন্ন বাজেট অধিবেশনে আমরা যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তবে স্থায়ী কমিটির বৈঠকেই এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

সংসদে যোগ দেয়া নিয়ে বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুক আরটিএনএন- কে বলেন, ‘নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তারের পর সংসদে যাওয়ার কোনো পরিবেশ আর নেই। এজন্য সরকারই দায়ী। তারা প্রতিনিয়ত বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে অঘটনের জন্ম দিচ্ছেন।’

তিনি জানান, ‘এরপরও সংসদের যাওয়ার ব্যাপারে আমাদের দলীয় চেয়ারপারসন সব সময় যেমন ইতিবাচক ছিলেন, বাজেট অধিবেশ নিয়েও ইতিবাচক। তবে দলীয় ফোরামে আলোচনার পরেই আমরা সিদ্ধান্ত নেব যাব কি যাব না। তবে এখনও আমরা কাউকে হতাশ করতে চাই না।’

এক প্রশ্নের জবাবে ফারুক বলেন, ‘সংসদে সদস্য পদের চেয়ে দেশ ও জাতি অনেক গুরুত্বপূর্ণ। সরকারের অত্যাচারে জনগণের নাভিঃশ্বাস উঠেছে। আমরা না চাইলেও জনগণ চান- আমরা রাজপথের আন্দোলনের মতো সংসদে গিয়েও ভূমিকা রাখি।’

‘তবে সংসদে যাওয়ার সিদ্ধান্ত আমাদের জন্য আরো সহজ হবে সরকার যদি তত্ত্বাবধায়ক সরকার পুনর্বহালে আমাদের দাবি মেনে নেন।’- যোগ করেন বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ।

উল্লেখ্য, বিরোধীদলীয় জোটের শরিক বিএনপি, জামায়াত ও বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির (বিজেপি) সংদস সদস্যরা সব শেষ গত বছরের ২০ মার্চ সংসদ থেকে যাওয়ার পর আর ফেরেননি।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।