সংসদ বহাল রেখে নির্বাচনের ফলাফল হবে বিতর্ক: টিআইবি

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) মন্তব্য করে বলেছেন সংসদ বহাল রেখে দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দিলে সব দলের জন্য সমান সুযোগ তৈরি করা সম্ভব নয় এবং এতে বিতর্কের সৃষ্টি হবে।

রোববার এক সংবাদ সম্মেলনে সংস্থার নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান এ মন্তব্য করেন। ‘কার্য্কর নির্বাচন কমিশন: অগ্রগতি, চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক এ অনুষ্ঠানে টিআইবির পক্ষ থেকে সংসদ বহাল রেখে নির্বাচন হলে এর কুফলগুলো তুলে ধরা হয়। ব্র্যাক ইন সেন্টারে আয়োজিত এ সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে টিআইবির কর্মকর্তা শাহজাদা এম আকরাম, রবিউল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

ইফতেখার বলেন, “সংসদ বহাল রেখে নির্বাচন হলে এর ফলাফল নিয়ে বিতর্ক হবে। এজন্যে সব প্রার্থীর সমান সুযোগের বিষয়টি ভাবতে হবে।”

তিনি বলেন, “সংসদ বহাল রেখে নির্বাচন হলে মন্ত্রী ও সংসদ সদস্যদের সম্ভাব্য প্রভাব রোধ করা ইসির জন্যে বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়াবে। তাদের বিশেষ সুবিধা দেয়ার উদ্যোগ ইসিকে সমালোচনার মুখে ফেলবে।”

নির্বাচন সামনে রেখে সবার জন্য সমান ক্ষেত্র নিশ্চিতের পাশাপাশি প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে আস্থা বাড়ানো, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলীয় প্রভাব দূর করা, আইনি সীমাবদ্ধতা থেকে উত্তরণ, আইনের প্রাতিষ্ঠানিক উন্নয়ন অব্যাহত রাখা এবং জনগণের আস্থা অর্জন ইসির জন্যে গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জ হবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

দশম সংসদ নির্বাচনেও জেলা প্রশাসকদের রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব দেয়ার সিদ্ধান্তে প্রশাসনে দলীয় প্রভাব পড়বে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন টিআইবির ট্রাস্টি এম হাফিজউদ্দিন খান।

তিনি বলেন, “ডিসিদের রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিতে হবে। যুগ যুগ ধরে তাদের এ দায়িত্বে রাখতে হবে এমন কথা নেই। ইসির নিজস্ব জনবলকে রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব দিতে হবে।”

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাদের দিয়ে নির্বাচন করতে সমস্যা নেই বলেও তিনি মত প্রকাশ করেন।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।