সোনালী ব্যাংকের ঋণ জালিয়াতির তদন্ত চলছে

হলমার্ক, পারটেক্স, রূপসী গ্রুপসহ অর্ধশতাধিক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে সোনালী ব্যাংকের নয়টি শাখা থেকে প্রায় সাত হাজার কোটি টাকার ঋণ জালিয়াতি, অর্থপাচার ও আত্মসাতের ঘটনায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) একাধিক দল তদন্ত ও অনুসন্ধান চালাচ্ছে।

সোনালী ব্যাংকের শাখাগুলো হলো ঢাকায় লোকাল অফিস, বৈদেশিক বাণিজ্য করপোরেট শাখা, বঙ্গবন্ধু এভিনিউ করপোরেট শাখা, হোটেল রূপসী বাংলা (শেরাটন) করপোরেট শাখা, আগারগাঁও শাখা, গুলশান শাখা, নারায়ণগঞ্জ করপোরেট শাখা, চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ করপোরেট শাখা ও লালদীঘি করপোরেট শাখা।

এদিকে মঙ্গলবার দুদকের উপপরিচালক মীর মো. জয়নুল আবেদীন শিবলী সোনালী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও নারায়ণগঞ্জের পাঁচটি শাখায় সংরক্ষিত প্রায় তিন ডজন প্রতিষ্ঠানের নামে ঋণসংক্রান্ত যাবতীয় নথি চেয়ে নোটিশ পাঠায়েছেন।
মীর মো. জয়নুল আবেদীন শিবলী নতুন বার্তা ডটকমকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে দুদকের এই তদন্ত দলের সদস্যরা সোনালী ব্যাংকের হোটেল রূপসী বাংলা শাখা থেকে হলমার্ক গ্রুপের  ও বঙ্গবন্ধু এভিনিউ শাখা  থেকে পারটেক্স গ্রুপের  প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা ঋণ জালিয়াতি-সংক্রান্ত নথিপত্র জব্ধ করে।

দুদকের উপপরিচালক বেনজির আহমেদের নেতৃত্বাধীন অন্য দলের সদস্যরা সোনালী ব্যাংক আগারগাঁ ও গুলশান শাখার ১৪১ কোটি টাকার ঋণ জালিয়াতি ঘটনায়  নথিপত্র জব্ধ করে পুরো বিষয়টি নিয়ে অনুসন্ধান চালাচ্ছেন বলে জানা যায়।

দুদকের নোটিশে ঢাকায় মতিঝিল সোনালী ব্যাংক লোকাল অফিসের গ্রাহক ‘অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, কেএনএস ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, ক্যাংসান ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, থারমেক্স  টেক্সটাইল, ইকো কটন মিলস, রহিমা ফুড করপোরেশন, এপেক্স উইভিং অ্যান্ড ফিনিশিং মিলস লিমিটেড, পদ্মা পলিকটন নিট ফেব্রিক্স লিমিটেড, কেএসএস নিট কম্পোজিট লিমিটেড, পিলুসিড টেক্সটাইল লিমিটেডের নামে ২০০৯ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত ঋণের আবেদন, ঋণ প্রদান, ব্যাংক কর্মকর্তাদের  সুপারিশ, বাংলাদেশ ব্যাংক ও সোনালী ব্যাংকের পরিদর্শন প্রতিবেদন, অডিট রিপোর্ট, আমদানি-রফতানিসংক্রান্ত নথিপত্র সরবরাহ করতে বলা হয়েছে।

দুদকের নোটিশে ঢাকার মতিঝিলে সোনালী ব্যাংক বৈদেশিক বাণিজ্য করপোরেট শাখার গ্রাহক মেসার্স বেরিল অ্যাপারেল্স লিমিটেড এবং মের্সাস ইউসুফ অ্যান্ড কোম্পানির ২০১০ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত  ওই ব্যাংকের ঋণ উত্তোলন, এলসি, আমদানি-রফতানিসংক্রান্ত বাংলাদেশ ব্যাংক ও সোনালী ব্যাংকের পরিদর্শন রিপোর্টসহ যাবতীয় নথিপত্র চাওয়া হয়েছে।

দুদকের নোটিশে সোনালী ব্যাংকের নারায়ণগঞ্জ  করপোরেট শাখার গ্রাহক মেসার্স রূপসী গ্রুপের প্রতিষ্ঠান  রূপসী নিটওয়্যার লিমিটেড, রূপসী ফেব্রিক্স লিমিটেড, রূপসী এমব্রয়ডারি, রূপসী ডিজাইন অ্যান্ড প্রিন্টিংস ও  মেসার্স সালমান নিট কম্পোজিট লিমিটেডের নামে ২০০৯ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত ঋণ উত্তোলন, এলসি, আমদানি-রফতানি, অডিট রিপোর্ট, বাংলাদেশ ব্যাংক ও সোনালী ব্যাংকের পরিদর্শন রিপোর্টসহ যাবতীয় নথিপত্র চাওয়া হয়েছে।

দুদকের নেটিশে চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ সোনালী ব্যাংক করপোরেট শাখার গ্রাহক ইমাম ট্রেডার্স, জামমির ভেজিটেবল ওয়েল লিমিটেড, এ কে এন্টারপ্রাইজ, মহিউদ্দিন করপোরেশন, কামাল এন্টারপ্রাইজ ও অর্কিড ফ্যাশনের নামে ২০১০  থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত  সোনালী ব্যাংকের ওই শাখায় ঋণের আবেদন, ঋণ উত্তোলন, এলসি, আমদানি-রফতানিসংক্রান্ত বিষয়ে অডিট রিপোর্ট, বাংলাদেশ ব্যাংক ও সোনালী ব্যাংকের পরিদর্শন রিপোর্টসহ যাবতীয় নথিপত্র চাওয়া হয়েছে।
চট্টগ্রামের লালদীঘি সোনালী ব্যাংক করপোরেট শাখার গ্রাহক মের্সাস সিদ্দিক ট্রেডার্স, মের্সাস বেঞ্জ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, এভারেস্ট প্রাইভেট লিমিটেড, ইউরো অ্যাপারেলস লিমিটেড, অ্যাপারেল ফেয়ার লিমিটেড, মুক্তা অ্যাপারেলস লিমিটেড, লিবরা ফ্যাশন ওয়্যার লিমিটেড, বিউমন্ড গামের্ন্টস লিমিটেড, হোসেন অ্যাপারেলস লিমিটেড, মের্সাস একমি টেক্সটাইল অ্যান্ড গার্মেন্টস লিমিটেড, ইমন অ্যাপারেলস লিমিটেড, মডেল অ্যাপারেলস লিমিটেড, ইউনাইটেড ফ্যাশন লিমিটেড, ডিউড্রপস অ্যাপারেলস লিমিটেড, রোজেন্ট গামের্ন্টস লিমিটেড, কোব অ্যাসোসিয়েটস লিমিটেড, এমাইকো ফেব্রিক্স লিমিটেড, তন্নী নিটওয়্যার লিমিটেড, মৌসুমী টাওয়েল লিমিটেডের নামে ২০১০ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত ব্যাংকের ওই শাখায় ঋণের আবেদন, বন্ধকি জমি, ঋণ উত্তোলন, এলসি, অডিট রিপোর্ট, বাংলাদেশ ব্যাংক ও সোনালী ব্যাংকের পরিদর্শন রিপোর্টসহ যাবতীয় নথিপত্র চাওয়া হয়েছে।

দুদক সূত্রে জানা যায়, প্রাথমিক অনুসন্ধানে সোনালী ব্যাংকের ঢাকার লোকাল অফিসে  ১৬ শত কোটি টাকা, বৈদেশিক বাণিজ্য করপোরেট শাখায় ১০০ কোটি টাকা, চট্টগ্রামের লালদীঘি করপোরেট শাখায় ৯০ কোটি, চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ করপোরেট শাখায় ৩০০ কোটি ও নারায়ণগঞ্জ করপোরেট শাখায় ৩৫০ কোটি টাকা ঋণ জালিয়াতির বিষয়টি বেরিয়ে এসেছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।