আব্দুল কাদের মোল্লার রায় কার্যকর স্থগিত

মানবতাবিরোধী অপরাধে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আব্দুল কাদের মোল্লার রায় কার্যদকর বুধবার সকাল সাড়ে ১০টা পর্যমন্ত স্থগিত করেছেন চেম্বারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসাইন।
মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে চেম্বার বিচরিপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন এই স্থগিতাদেশ দেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সংশ্লিষ্ট আদালতের বেঞ্চ অফিসার ইসলাম উদ্দিন এবং তার আইনজীবী তাজুল ইসলাম।

শুনানি শেষে আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, রায় কার্যকর স্থগিতাদেশ অ্যাটর্নি জেনারেলের কাছে পাঠানো হয়েছে। এরপরও যদি রায় কার্যকর করা হয় তাহলে সেটি হবে সম্পূর্ণ বেআইনি।

রায় কার্যকরের আবেদনের শুনানি শেষে আসামিপক্ষের অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘আবদুল কাদের মোল্লার রায় কার্যকর করার প্রক্রিয়া আসামিপক্ষের রিভিউ ফাইল করার জন্য চেম্বার বিচারপতি আগামীকাল বুধবার সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত স্থগিতের আদেশ দিয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘বিচারপতির আদেশ অ্যাটর্নি জেনারেল এবং কারা কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়েছে।’

মাহবুব হোসেন বলেন, ‘এই আদেশের পর ফাঁসি কার্যকরে কারা কর্তৃপক্ষের কোনো এখতিয়ার নেই। আমরা আশা করব দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠিত হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা আগামীকাল বুধবার প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে সুপ্রিমকোর্টের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে রিভিউ ফাইল শুনানির জন্য উপস্থাপন করব। এরপর আদেশের ওপর নির্ভর করবে রায় কার্যকরের পরবর্তী পদক্ষেপ। এর আগে কোনোভাবেই রায় কার্যকরের সুযোগ নেই।’

মাহবুব হোসেন বলেন, ‘এরপরও যদি কর্তৃপক্ষ রায় কার্যকর করে, তাহলে সেটি হবে সম্পূর্ণ বেআইনি এবং আইনের শাসনের পরিপন্থি।’

এর আগে কারা কর্তৃপক্ষ রায় কার্যকরের জন্য কাদের মোল্লার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সাক্ষাতের সুযোগ করে দেন। এরপর কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকর স্থগিত চেয়ে সুপ্রিমকোর্টের চেম্বার বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের কাছে আবেদন করেন আসামিপক্ষের আইনজীবীরা।

মঙ্গলবার রাত ৮টা ২৫ মিনিটের দিকে কাকরাইলের জাজেজ কোয়ার্টারে গিয়ে আসামিপক্ষের আইনজীবীরা এ আবেদন করেন।

আইনজীবীদের মধ্যে ছিলেন- বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার মাহবুব হোসেন, ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক, অ্যাডভোকেট তাজুল ইসলাম প্রমুখ।

এরপর অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এমকে রহমানকে ডেকে পাঠান বিচারপতি মাহমুদ হোসেন।

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।