শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে

আজ ১৪ ডিসেম্বর। শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। যথাযোগ্য মর্যাদায় সারা দেশে দিবসটি পালিত হচ্ছে।

বুদ্ধিজীবী দিবসে শহীদ বুদ্ধিজীবী স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও বিরোধীদলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়া।

এছাড়া বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনও ফুল দিয়ে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছেন।

১৯৭১ সালের এই দিনে স্বাধীনতার ঠিক পূর্ব মুহূর্তে শিক্ষক, চিকিৎসক, শিল্পী, চলচিত্রকার, সাংবাদিকসহ দেশের বরেণ্য বুদ্ধিজীবীদের বেছে বেছে হত্যা করা হয়।

বাংলাদেশ নামের একটি স্বাধীন সার্বভৌম ভূ-খণ্ডের জন্ম যখন হাতের নাগালে তখন বেছে বেছে বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করা হয়।

মেধায় মননে, সৃজনশীলতায় এদেশের মানুষ যেন স্বাধীনতার পর বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে না পারে সে লক্ষ্যে এদিন বাংলাদেশের অসংখ্য বুদ্ধিজীবীকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। মোহাম্মাদপুরের বেড়ি বাঁধ সংলগ্ন রায়েরবাজারের বধ্যভূমিতে অনেকের লাশ পাওয়া যায়।

এই দিন প্রাণ দিতে হয় বাংলার কৃতি সন্তান অধ্যাপক মুনীর চৌধুরী, ডা. ফজলে রাব্বী, ডা. আলীম চৌধুরী, সাহিত্যিক সেলিনা পারভীন, ড. মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরী, রাশেদুল হাসান, ড. আনোয়ার পাশা, সাংবাদিক সিরাজুদ্দীন হোসেন, শহীদুল্লাহ কায়সার, নিজামুদ্দীন আহমেদ, গিয়াসউদ্দিন আহমদসহ অসংখ্য বুদ্ধিজীবীকে।

তাই শোকার্ত জাতি স্বাধীনতার ৪২ বছর পরও পরম শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে সেই সব কৃতি সন্তানদের।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।