বিশ্ব ইজতেমা: মোনাজাতে দেশ, জাতি, উম্মাহর শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা

টঙ্গীর তুরাগ তীরে দুই পর্বে অনুষ্ঠিত বিশ্ব ইজতেমা দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে। রোববার সকাল ১০টার দিকে সংক্ষিপ্ত মোনাজাতের মধ্য দিয়ে এবারের ইজতেমা সমাপ্ত হয়।

বরাবরের মতো আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করেন দিল্লির মাওলানা মো. যোবায়রুল হাসান।  মোনাজাতে দেশ, জাতি, উম্মাহর শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করা হয়।

আগের পর্বগুলোতে দুপুর সাড়ে ১২টার পর মোনাজাতের রেওয়াজ থাকলেও এবারই প্রথম সকাল ১০টায় মোনাজাত শুরু হয়। আর মোনাজাতও ছিল অপেক্ষাকৃত কম সময়ে। জানা যায়, বেলা সাড়ে ১২টার পর মোনাজাত শুরু করলে টঙ্গী এলাকায় জোহরের আজান ও নামাজের সমস্যা হয়। এ বিষয়টি সম্পর্কে তাবলিগের মুরব্বিদের অবহিত করলে তারা সকালেই মোনাজাত পরিচালনার সিদ্ধান্ত নেন।

আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে রোববার ভোর থেকেই টঙ্গীর ইজতেমা মাঠ অভিমুখে মুসল্লিদের ঢল নামে। লাখ লাখ মুসল্লি জড়ো হন তুরাগ তীরের ইজতেমা ময়দানে। নির্ধারিত সময়ের আগেই মোনাজাত অনুষ্ঠিত হওয়ায় অনেকেই তাতে শরিক হতে পারেননি।

প্রতিবারের মতো এবারো টঙ্গীর পথে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয় শনিবার মধ্যরাত থেকেই। ফলে মুসল্লিদের পায়ে হেঁটে ইজতেমাস্থলে আসতে থাকেন।  সকাল ৮টার আগেই ইজতেমা মাঠ কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যাওয়ায় বহু মানুষ মাঠের আশেপাশের রাস্তা ও অলি-গলিতে অবস্থান নেন।  কামারপাড়া সড়ক ও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে পুরানা খবরের কাগজ, পাটি, সিমেন্টের বস্তা ও পলিথিন বিছিয়ে বসে পড়েন অনেকে। সড়কের পার্শ্ববর্তী বাসা-বাড়ি-কলকারখানা-অফিস-দোকানের ছাদ এবং রাস্তার পাশে দাঁড় করিয়ে রাখা যানবাহন ও তুরাগ নদীতে নৌকার ওপরও অবস্থান নেন মুসল্লিরা।

আখেরি মোনাজাতের জন্য রোববার ইজতেমা মাঠের আশে-পাশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কলকারখানাসহ অফিস-আদালতেও ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

এর আগে গত রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হয় প্রথম পর্বের ইজতেমা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।