আজ সারা দেশে একযোগে শুরু হয়েছে এইচএসসি-সমমানের পরীক্ষা

দেশের আটটি সাধারণ, মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডে বৃহস্পতিবার থেকে একযোগে শুরু হয়েছে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। এবার এ পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে ১১ লাখ ৪১ হাজার ৩৭৪ জন শিক্ষার্থী।

সকাল ১০টায় এইচএসসিতে বাংলা প্রথমপত্র পরীক্ষা শুরু হয়। শেষ হবে দুপুর ১টায়। একই সময়ে মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের আলিমে হচ্ছে কুরআন মাজিদ পরীক্ষা।

এবার ৫ জুন পর্যন্ত তত্ত্বীয় বিষয় এবং ৭ থেকে ১৬ জুনের মধ্যে ব্যবহারিক পরীক্ষা হবে বলে বুধবার শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ জানিয়েছেন।

তিনি সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে জানান, এবার আটটি সাধারণ বোর্ডের অধীনে ৯ লাখ ২৪ হাজার ১৭১জন, মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে ১ লাখ সাত হাজার ৫৫৭ জন, কারিগরি বোর্ডের অধীনে ১ লাখ ৪ হাজার ৬৬৯ জন এবং ডিআইবিএসে ৪ হাজার ৯৭৭ জন পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে।

নাহিদ বলেন, ‘প্রতি বছর শিক্ষার্থীদের সংখ্যা বাড়ছে। গতবছরের তুলনায় এবার পরীক্ষার্থী বেড়েছে ১ লাখ ২৮ হাজার ৭৯৩ জন। আর এবারও পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৬০ দিনের মধ্যে ফলাফল প্রকাশ করা হবে।’

তিনি জানান, এবার দুই হাজার ৩৫২টি কেন্দ্রে আট হাজার ১০৪টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দেবে। গতবারের চেয়ে এবার ৩০১টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও ৬৪টি পরীক্ষা কেন্দ্র বেড়েছে।

মন্ত্রী জানান, এর আগে ২০১২ সালের এইচএসসিতে বাংলা প্রথমপত্রের পরীক্ষা সৃজনশীল প্রশ্নে হয়। আর ২০১৩ সালে বাংলা প্রথমপত্র, রসায়ন প্রথম ও দ্বিতীয়পত্র, পৌরনীতি প্রথম ও দ্বিতীয়পত্র, ব্যবসায় নীতি ও প্রয়োগ প্রথম ও দ্বিতীয়পত্রের পরীক্ষা সৃজনশীল পদ্ধতিতে হয়েছিল।

এবার যেসব বিষয় সৃজনশীল পদ্ধতিতে হবে সেগুলো হলো- বাংলা প্রথমপত্র, রসায়ন, পৌরনীতি, ব্যবসায় নীতি ও প্রয়োগ, জীববিজ্ঞান, পদার্থবিদ্যা, ইতিহাস, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি, হিসাব বিজ্ঞান,ব্যবসায় উদ্যোগ ও ব্যবহারিক ব্যবস্থাপনা, সমাজবিজ্ঞান, সমাজকল্যাণ এবং কম্পিউটার শিক্ষা প্রথম ও দ্বিতীয়পত্র।

নেওয়া পরীক্ষার্থীর মধ্যে এবার ৬ লাখ ৬ হাজার ২৯৩ জন ছাত্র এবং ৫ লাখ ৩৫ হাজার ৮১ জন ছাত্রী।

আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের মধ্যে ঢাকা বোর্ডে ৩ লাখ ৩৮, রাজশাহী বোর্ডে ১ লাখ ১৩ হাজার ৩৩৮, কুমিল্লায় ১ লাখ ৪ হাজার ৪১৮, যশোরে ১ লাখ ১৬ হাজার ৭৫২, চট্টগ্রামে ৭৭ হাজার ৭০৯, বরিশালে ৫৫ হাজার ৭৪১, সিলেটে ৫৭ হাজার ৮৮৮ ও দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ডে ৯৮ হাজার ২৮৭ পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে।

শ্রুতিলেখক নিয়ে পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী এবং বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী, শ্রবণপ্রতিবন্ধী (মুখ ও বধির) পরীক্ষার্থীদের জন্য আগের মত অতিরিক্ত ২০ মিনিট সময় বরাদ্দ থাকবে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।