বিদেশি অনুদান গ্রহণে স্বচ্ছতা আনতে রেগুলেশন আইন ২০১৪ এর’ খসড়ার অনুমোদন

সন্ত্রাসী কার্যক্রম, জঙ্গিবাদে সহায়তা, শিশুপাচার ও মাদকসংক্রান্ত অভিযোগ পাওয়া গেলে এনজিওদের বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনে বিচার করার বিধান রেখে ‘বৈদেশিক অনুদান (স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রম) রেগুলেশন আইন ২০১৪ এর’ খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।
একই সঙ্গে কোনো রাজণীতিক দল, সংসদ সদস্য, বিচারপতি ও সরকারি বেসরকারি ব্যক্তিরা বৈদেশিক সাহায্য নিতে পারবে না এমন বিধান রাখা হয়েছে এ নীতিমালায়। সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সভাকক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ নীতিমালা অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞা সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

সচিব মোশাররাফ হোসাইন ভূঁইঞা বলেন, এ আইন দুটি সাময়িক সরকারের আমলে হয়েছিল। এ আইনটিতে এনজিওগুলোর অনুদানের  স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা বিষয়টি রাখা হয়েছে। সচিব বলেন, আগের আইনটি ছিল অনেক হালকা, এ কারণে আইনটি বাংলায় করার পরে ইংরাজিতে করা হবে। তিনি বলেন, সরকারের পাশাপাশি এনজিওগুলো অংশিদারিত্বমূলক কাজ করতে পারবে। এছাড়া এনজিওগুলো নজরদারি ও কার্যক্রম গতিশীল করা হচ্ছে।
কোনো এনজিও বৈদেশাশিক সাহায্য নিতে হলে তাকে এনজিও ব্যুারোর রেজিস্ট্রার ভুক্ত হতে হবে। তা না হলে সেই এনজিও সাহায্য নিতে পারবে না। আর বৈদেশিক সাহা্য্য নিতে হলে বলতে হবে কী কাজে এ সাহায্য নিচ্ছে। এছাড়া বিমা নীতিমালা ২০১৪ এর খসড়া অনুমোদন এবং বাংলাদেশ ও কম্বোডিয়ার মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বিনিয়োগ উন্নয়ন ও পারস্পরিক সুরক্ষা চুক্তি স্বাক্ষরের প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয় আজকের মন্ত্রিসভার বৈঠকে। এছাড়া চারটি বিষয়ে মন্ত্রিসভাকে অবহিতকরণ করা হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।