মুসলিম গ্রামবাসীর ওপর নির্বিচার গুলির পর বিএসএফ সদস্যের আত্মহত্যা

বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী ত্রিপুরার আগরতলায় মুসলিম গ্রামবাসীর ওপর নির্বিচার গুলি চালিয়ে একজনকে হত্যা করেছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফ। এছাড়া বেশ কয়েকজন গুলিবিদ্ধ ও নিখোঁজ রয়েছে। শুক্রবার রাতে আখাউড়া বন্দরের কাছে দক্ষিণ রামনগরের এ ঘটনায় মদ্যপ এক বিএসএফ জওয়ানও আত্মহত্যা করেছে।

গ্রামবাসী জানান, ইসমাইল মিয়া নামের এক বৃদ্ধ সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়ার কাছে একটি পুকুরে যেতে চাইলে বিএসএফ সদস্যরা তাকে বাধা দেয়। গ্রামবাসী এর প্রতিবাদ করলে তাদের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। এ সময় অন্যরা এগিয়ে গেলে এক বিএসএফ সদস্য এলোপাথাড়ি গুলিবর্ষণ করেন। এতে ইসমাইল নিহত এবং বেশ কয়েকজন গুলিবিদ্ধ হন। পরে ১৯৫ ব্যাটালিয়নের সন্দীপ নামের ওই বিএসএফ সদস্য নিজের ওপর গুলি চালিয়ে আত্মহত্যা করেন।

আহত নয় গ্রামবাসীকে হাতপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। পাশপাশি কয়েকজনের খোঁজ মিলছে না বলে তাদের স্বজনরা অভিযোগ করেছেন। নানু মিয়া নামে আহতদের একজন বলেন, ‘ওই সময় বিদ্যুৎ চলে যাওয়ায় আমরা ঘরের বাইরে বেরিয়েছিলাম। তখন বিএসএফ সদস্যদের একজন এলোপাথাড়ি গুলি ছুড়তে শুরু করে। তাতে অনেকে আহত হন।’

বিএসএফ দাবি করেছে, গ্রামবাসী বিএসএফ সদস্যদের ওপর হামলা করলে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। গ্রামবাসী এক বিএসএফ জওয়ানকে হত্যা করেছে বলেও দাবি করে সীমান্তে রক্তপাতের জন্য কুখ্যাত ভারতীয় সীমান্তরক্ষী এই বাহিনী। হতাহতের পর থেকে ওই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ত্রিপুরা পুলিশ টহল দিচ্ছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।