ফরমালিন রোধে রাজধানীর আটটি প্রবেশমুখে চেকপোস্ট : ডিএমপি

মৌসুমি ফলসহ সব ধরনের খাদ্যে ফরমালিন মেশানো বন্ধে আগামী বুধবার থেকে রাজধানীর আটটি প্রবেশমুখে চেকপোস্ট বসিয়ে অভিযান চালাবে পুলিশ। মাত্রাতিরিক্ত ফরমালিনের অস্তিত্ব পাওয়া ফল ঘটনাস্থলেই ধ্বংস করা হবে।

রোববার দুপুরে রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান ডিএমপি কমিশনার বেনজির আহমেদ।
তিনি বলেন, “ঘটনাস্থলে ফরমালিন পাওয়া ফল ধ্বংসের ফলে অনেকে আর্থিক ক্ষতির মুখোমুখি হতে পারেন। আমরা তা চাই না। এজন্য মিডিয়ার মাধ্যমে ব্যবসায়ীদের প্রতি অনুরোধ- কেউ খাদ্যে মাত্রাতিরিক্ত ফরমালিন মেশাবেন না।”
অভিযানের জন্য নির্ধারিত রাজধানীর আটটি প্রবেশপথ হলো- পোস্তগোলা ব্রিজ, যাত্রবাড়ির সাইনবোর্ড এলাকা, ডেমরা থানা এলাকা সংলগ্ন সুলতান কামাল ব্রিজের পশ্চিম পাশে ডেমরা চৌরাস্তা, বাবুবাজার ব্রিজ, সদরঘাট ওয়াইজঘাট এলাকা, গাবতলী পর্বত সিনেমা হলের সামনে, আবদুল্লাহপুর ব্রিজ ও ধউর ব্রিজ এলাকা।
পুলিশ কমিশনার বেনজির আহমেদ বলেন, “এ মধু মাসে কোনো ফরমালিনযুক্ত ফল যেন রাজধানীবাসীকে কিনতে না হয়, সেজন্যই মূলত এ অভিযান। ফরমালিন মেশানো খাবার শিশু থেকে বৃদ্ধ সবার জন্যই ক্ষতিকর। রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় অভিযানে আমরা দেখেছি ফল ও অন্যান্য খাবারে সহনীয় মাত্রার চেয়ে অনেক বেশি পরিমানে ফরমালিন মেশানো হয়, যা মানুষের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর।”
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী একজন প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যক্তি প্রতিদিন গড়ে ০.০৩ থেকে ০.১৫ পিপিএম মাত্রা পর্যন্ত ফরমালিন গ্রহণ করতে পারেন। গত ফেব্রুয়ারি থেকে ঢাকা মহানগর পুলিশ বিভিন্ন স্থানে ভেজালবিরোধী অভিযান চালানো হয়। এসব অভিযানে ৩.৫ পিপিএম-এর বেশি পরিমান ফরমালিনের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে, যা স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতি।
মাত্রাতিরিক্ত ফরমালিন গ্রহণের ফলে মানবদেহে ক্যানসার, কিডনি বিকল হয়ে কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্র ব্যবস্থায় সমস্যা ও চোখের কর্ণিয়া ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং দৃষ্টিশক্তি কমে যায়। সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার আবদুল জলিল, আব্দুল জলিল মন্ডল ও মিলি বিশ্বাস এবং যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম, উপকমিশনার মাসুদুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।