নারায়ণগঞ্জ ৭ খুনের প্রধান আসামি নূর হোসেন গ্রেপ্তারের বিষয়ে সরকার কিছুই জানে না : আশরাফ

নারায়ণগঞ্জে চাঞ্চল্যকর সাত খুনের ঘটনায় করা মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনের ভারতে গ্রেপ্তার হওয়ার বিষয়ে সরকার কিছু জানে না বলে মন্তব্য করেছেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম।

 

তিনি সোমবার রাজধানীর জাতীয় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে জাতীয় ফল প্রদর্শনীর উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ মন্তব্য করেন। সৈয়দ আশরাফ বলেন, ‘সরকার এ বিষয়ে যেটুকু জেনেছে, তা গণমাধ্যমের মাধ্যমে।’

 

গত শনিবার রাত নয়টার দিকে কলকাতায় নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু বিমানবন্দর সংলগ্ন বাগুইয়াটি থানা এলাকার কৈখালির একটি বাসা থেকে নূর হোসেন ও তার দুজন সহযোগীকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের কাছ থেকে কিছু টাকা ও আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করা হয়।

 

গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তিদের কাছে ভারতে আসার কোনো বৈধ কাগজপত্র বা পাসপোর্ট পায়নি পুলিশ। অনুপ্রবেশ, অস্ত্র আইন ও জুয়ার আসর বসানোর অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে দায়ের মামলায় তাদের গতকাল রবিবার আট দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

 

নূর হোসেনকে গ্রেপ্তারের পর নারায়ণগঞ্জের জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) খন্দকার মহিদ উদ্দিন বলেছেন, ‘কলকাতা পুলিশের সংশ্লিষ্ট শাখার সঙ্গে কথা বলে নিশ্চিত হয়েছি, গ্রেপ্তার হওয়া ব্যক্তি সাত খুনের মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেন। তাকে দেশে আনার আইনগত প্রক্রিয়া শিগগিরই শুরু হবে।’ আর স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে বলেছেন, ‘নূর হোসেনকে দ্রুত বাংলাদেশে ফেরত আনার পদক্ষেপ নেয়া হবে।’

 

প্রসঙ্গত, গত ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ সিটি প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামসহ সাতজনকে অপহরণ করা হয়। তিনদিন পর ৩০ এপ্রিল তাদের শীতলক্ষ্যা নদী থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়। এর আগে ২৮ এপ্রিল নজরুলের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম সিদ্ধিরগঞ্জ আওয়ামী লীগ নেতা নূর হোসেনকে প্রধান আসামি করে ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা করেন। অনুষ্ঠানে সৈয়দ আশরাফ বলেন, ‘কৃষি এক সময় অবহেলিত পেশা ছিল, এখন তা নেই।’

 

সকাল নয়টায় ফল প্রদর্শনীর উদ্বোধন ঘোষণা করেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী। অনুষ্ঠানে সভাপতি ছিলেন কৃষি সচিব এস এম নাজমুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে মতিয়া চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের এখানে পরিকল্পিতভাবে ফল উত্পাদন করা সম্ভব হলে, সেখান থেকে পুষ্টির সব উপাদান আসবে। আমাদের বিদেশি ফলের দিকে ঝোঁকার প্রবণতা আছে, সেটা কমাতে হবে।’

 

তিনি বলেন, ফলের রক্ষণাবেক্ষণের ব্যাপারে কৃষকদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। সরকারের কৃষি সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোকে এ ব্যাপারে দায়িত্ব নিয়ে কাজ করতে হবে

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।