মুন্সীগঞ্জের মাওয়ায় লঞ্চডুবি, ২ লাশ উদ্ধার : ডুবে যাওয়ার এক্সক্লুসিভ ভিডিও

মুন্সীগঞ্জের মাওয়া ঘাটের অদূরে পদ্মা নদীতে দুই শতাধিক যাত্রী বোঝাই একটি লঞ্চ ডুবে গেছে। সোমবার সকাল ১১টার দিকে পদ্মা নদীর লৌহজং টার্নিং পয়েন্টে পিনাক-৬ নামের লঞ্চটি ডুবে যায়। এতে এখন পর্যন্ত দুজনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

জীবিত শতাধিক যাত্রী উদ্ধার হলেও এখনো অনেকে নিখোঁজ রয়েছে। পদ্মাপাড়ে স্বজন হারাদের ভীড় ক্রমেই বাড়ছে। সঙ্গে আর্তনাদে ভারী হয়ে উঠেছে বাতাস।

 

 

পিনাক-৬ ডুবে যাওয়ার ওই মুহূর্তের এক্সক্লুসিভ ভিডিও সংবাদ মাধ্যমে’র হাতে এসেছে। পদ্মাপাড়ে অপেক্ষমাণ কেউ মোবাইলে এটি ধারণ করেছেন। আমাদের প্রতিনিধি রাজীব হোসেন বাবুর পাঠানো ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে, মাত্র কয়েক সেকেন্ডের ব্যবধানে লঞ্চটি ডুবে যায়।

 

 

৫২ সেকেন্ডের ভিডিওতে তীব্র বাতাসে ডুবে যাওয়ার সময় লঞ্চ থেকে নারী-পুরুষের আর্তচিৎকার শোনা গেছে। তীরে দাঁড়িয়ে মানুষেরা এতগুলো জীবন প্রদ্বীপ শুধু নিভে যাওয়া দেখছিলেন, আর লা ইলাহা ইল্লাহু মুহাম্মাদুর (রা.)- কে স্মরণ করেছেন।

পিনাক-৬ নামে ওই লঞ্চটি কাওড়াকান্দি থেকে যাত্রী নিয়ে মাওয়া ঘাটের দিকে আসছিল বলে জানিয়েছেন মাওয়া নৌ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ খন্দকার খালিদ। মাওয়া হাইওয়ে ট্রাফিক ইন্সপেক্টর শাহাদত হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, ঘাট থেকে খালি লঞ্চ ও স্পিডবোটও উদ্ধারকাজ করছে। তবে তীব্র স্রোতের কারণে উদ্ধার কাজ বিঘ্নিত হচ্ছে।

 

স্পিডবোটে উদ্ধার পা্ওয়া এক যাত্রী সাংবাদিকদের বলেন, অতিরিক্ত লোক নেয়ায় উত্তাল নদীতে লঞ্চটি ডুবে যায়।

লৌহজং থানার ওসি মো. তাজুল ইসলাম জানান, প্রাথমিকভাবে জীবিত ব্যক্তিদের উদ্ধার করার চেষ্টা চলছে। এ পর্যন্ত বেশ কয়েকজনকে উদ্ধার করা হয়েছে। কতজনকে উদ্ধার করা হয়েছে বা কতজন নিখোঁজ রয়েছেন, তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।

তবে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ঘটনাস্থল থেকে ১১০ জন যাত্রীকে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।