গোলাম আযমের মরদেহের ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর

জামায়াতে ইসলামীর সাবেক আমির অধ্যাপক গোলাম আযমের মরদেহের ময়নাতদন্ত শেষ হয়েছে। ফরেনসিক বিভাগের চিকিৎসক আবুল খায়ের ও প্রদীপ ময়নাতদন্ত করেন।

শুক্রবার সকাল সোয়া সাতটার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে তার ময়নাতদন্ত করা হয়। এরপর সাড়ে সাতটার দিকে বড় ছেলে ব্রিগেডিয়ার (অব.) আব্দুল্লাহিল আমান আজমির কাছে ঢামেক কর্তৃপক্ষ মরদেহ হস্তান্তর করে।

সেখান থেকে মরদেহবাহী অ্যাম্বুলেন্স মগবাজারের নিজ বাসায় সকাল পৌনে আটটার দিকে এসে পৌঁছায়। গোসল শেষে কিছু সময় রাখার পর রাজধানীর কোনো হাসপাতালের হিমঘরে মরদেহ রাখা হবে বলে জানিয়েছেন আব্দুল্লাহিল আমান আজমি।

তিনি বলেন, লাশ বুঝে পেয়েছি। মগবাজারের কাজী অফিস লেনের বাসায় কিছু সময় রাখার পর মরদেহ হিমঘরে রাখা হবে। বিদেশ থেকে পরিবারের সদস্যরা আসার পর শনিবার তার নামাজে জানাজা এবং দাফনের সময় ঠিক করা হবে।

অধ্যাপক গোলাম আযমের লাশ মগবাজারে আনার সময় কড়া নিরাপত্তা দেওয়া হয়। আর তার বাড়ির আশপাশেও নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার রাতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ট্রাইব্যুনালে ৯০ বছর কারাদণ্ড পাওয়া অধ্যাপক গোলাম আযম (৯১)।

রাত ১১টা ৫০ মিনিটে তাকে মৃত ঘোষণা করেন বিএসএমএমইউর পরিচালক ব্রি. জেনারেল (অব.) আবদুল মজিদ ভূইয়া। তিনি বলেন, শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে গোলাম আযম আইসিইউতে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। রাত ১০টা ১০ মিনিটের দিকে তিনি শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।