বাজেটে বড় অঙ্কের বরাদ্দ দেয়ার পরও বিদ্যুৎ সুবিধার বাইরে ৩৩ শতাংশ মানুষ: বিবিএস

উন্নয়ন বাজেটে বড় অঙ্কের বরাদ্দ দেয়ার পরও বিদ্যুৎ সুবিধার বাইরে থাকতে হচ্ছে দেশের ৩৩ শতাংশ মানুষকে। এই তথ্য পাওয়া গেছে বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সাম্প্রতিক এক জরিপে।

 

‘মনিটরিং দ্য সিচ্যুয়েশন অব ভাইটাল স্ট্যাটিস্টিকস অব বাংলাদেশ’ (এমএসভিএসবি) প্রকল্পের অধীনে এ জরিপ পরিচালনা করা হয়। জরিপের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী ২০১২ সাল থেকে দেশে ৬৫.৬০ শতাংশ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় রয়েছে। এর আগে ২০১১ সালে ৬৩.৬০ শতাংশ, ২০১০ সালে ৫৪.৬০, ২০০৯ সালে ৫৪.৪০ এবং ২০০৮ সালে ৫৩ শতাংশ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় ছিল।

 

এই জরিপের আওতায় জন্ম, মৃত্যু, বিবাহ, তালাক, আগমন, বহির্গমন এবং আর্থসামাজিক তথ্য সংগ্রহ ও প্রক্রিয়াকরণ এবং নিয়মিতভাবে জনমিতি সম্পর্কিত তথ্য সম্পর্কে নমুনা জরিপ করা হয়। এ তথ্য শহর, পল্লী, বিভাগ ও জেলা পর্যায়ে হিসাব করা হয়।

 

প্রকল্পের পরিচালক এ কে এম আশরাফুল হক এ প্রসঙ্গে বলেন, জনতাত্ত্বিক তথ্য সংগ্রহের জন্য এমএসভির আওতায় জনমিতি সম্পর্কিত সূচকের অবস্থা বের করা হয়েছে। সেখানে মানুষ আলোর উেসর বিষয়টি গুরুত্বসহকারে জানার চেষ্টা করছে। বিদ্যুৎ ব্যবহারের প্রকৃত চিত্র আমাদের প্রতিবেদনে উঠে এসেছে।

 

জরিপে দেখা গেছে, আলোর উেসর জন্য কেরোসিনের ব্যবহার আগের তুলনায় কিছুটা কমেছে। ২০১২ সালে ৩৩.১০ শতাংশ, ২০১১ সালে ৩৪.৫০, ২০১০ সালে ৪৩.১০ শতাংশ মানুষ আলোর বিকল্প উৎস হিসেবে কেরোসিন ব্যবহার করত। ২০০৯ সালে এ জ্বালানির ওপর নির্ভরশীল মানুষ ছিল ৪৫.৬০ শতাংশ। এর আগের বছরে যা ছিল ৪৭ শতাংশ।

 

এ অর্জনকে স্বস্তিদায়ক মনে করছেন পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের (জিইডি) সদস্য ড. শামসুল আলম। তিনি বলেন, আমাদের ষষ্ঠ পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা অনুযায়ী যে লক্ষ্য ছিল, সেটি অর্জন করেছি।

 

২০২১ সালের মধ্যে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়ার পরিকল্পনা অনুযায়ী অর্থ বরাদ্দ ও বাস্তবায়ন করার বিষয়ে পরিকল্পনা চলছে। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) আওতায় চলতি (২০১৪-১৫) অর্থবছর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বরাদ্দ পেয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগ।

 

দেশের বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়ন ও আওতা বাড়ানোর জন্য ৫২টি প্রকল্পের বিপরীতে ৯ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এর আগের (২০১৩-১৪) অর্থবছর ৫৬ প্রকল্পের বিপরীতে ৮ হাজার ৭৫৬ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।