মীর কাসেম আলীর স্বজনরা তার সঙ্গে স্বাক্ষাৎ শেষে বের হয়েছেন

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের কাশিমপুর পার্ট-২ থেকে মীর কাসেম আলীর স্বজনরা তার সঙ্গে স্বাক্ষাৎ শেষে বের হয়েছেন। বিকাল পৌনে ৫টা থেকে ৬টা ৮ মিনিট পর্যন্ত তারা মীর কাসেমের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

শনিবার বিকেলে কয়েকটি মাইক্রোবাসে করে কাশিমপুর কারাগারে যান মীর কাসেমের স্ত্রী, মেয়ে ও পুত্রবধূসহ স্বজনরা।

দুপুরে রাজধানীর তেজগাঁও কলেজে এক অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, “মীর কাসেম আলীর ফাঁসির রায় কার্যকর করা সময়ের ব্যাপার মাত্র।”

এদিকে ফাঁসি কার্যকরে নিরাপত্তা ব্যবস্থাসহ সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ। ফাঁসি কার্যকরের জন্য জল্লাদও প্রস্তুত রয়েছে।

গতকাল শুক্রবার রাতে মীর কাসেম আলীর সঙ্গে শেষ সাক্ষাতের জন্য স্বজনদের তালিকা চায় কারা কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার রাত ১২টা ৪৮ মিনিটে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মীর কাসেম আলীর রিভিউ খারিজ সংক্রান্ত রায়ের কপি কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ এ পৌঁছে। তবে রাত বেশি হওয়ায় তাকে তা পড়ে শোনানো হয়নি। বুধবার সকাল সাড়ে ৭টায় আনুষ্ঠানিকভাবে তা পড়ে শোনানো হয়।
৬৩ বছর বয়সী মীর কাসেম আলী কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের ফাঁসির কনডেম সেলে বন্দী রয়েছেন। গ্রেফতারের পর ২০১২ সাল থেকে তিনি এ কারাগারে রয়েছেন। ২০১৪ সালের আগে তিনি এ কারাগারে হাজতবাসকালে ডিভিশনপ্রাপ্ত বন্দীর মর্যাদায় ছিলেন। পরে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তির পর তাকে ফাঁসির কনডেম সেলে পাঠানো হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।