মন্ত্রী-এমপিরা মসজিদ-মন্দিরে চাঁদা দিলেও বিধি লঙ্ঘন

নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেছেন, নির্বাচনি আচরণবিধি অনুসারে তফসিল ঘোষণার পর থেকে সরকারি সুবিধাভোগী, অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, উপনেতাসহ অন্যান্যরাও নির্বাচনকালীন সময়ে কোনো উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন, ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন, অনুদান ও সহায়তা করতে পারেন না। তিনি আরো বলেন, মসজিদ-মন্দিরে চাঁদা দেওয়া কিছুই করা যাবে না।’ আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে নিজ কার্যালয়ে বুধবার দুপুরে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

প্রসঙ্গত, গত ৮ নভেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। ওই তফসিল অনুযায়ী, ২৩ ডিসেম্বর ভোটের দিন নির্ধারিত হয়। পরে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের আবেদনের ভিত্তিতে ২৩ ডিসেম্বরের পরিবর্তে এক সপ্তাহ পিছিয়ে ৩০ ডিসেম্বর ভোটের তারিখ নির্ধারণ করা হয়।

নির্বাচনি আচরণবিধি অনুযায়ী, তফসিল ঘোষণার পর থেকে সরকারি সুবিধাভোগী, অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, সংসদ সদস্য, উপনেতাসহ অন্যান্যরাও নির্বাচনকালীন সময়ে কোনও উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন, ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন, অনুদান, সহায়তা করতে পারেন না।

ইসি সচিব বলেন, ‘আমরা বিভিন্ন মন্ত্রণালয়কে নির্দেশনা দিয়েছি যাতে নির্বাচনকে লক্ষ্য করে কোনও প্রকার উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে যাতে নতুন কোনও প্রকল্প গ্রহণ না করা হয়। যে প্রকল্প আছে সেগুলো চলমান থাকবে। কিন্তু ভোটকে কেন্দ্র করে, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কোনও উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড, ভিজিডি প্রদান বা টিন (ঢেউ টিন) দেওয়া, ভিজিএফ কার্ড দেওয়া, মানুষকে সহযোগিতা করা এগুলো যাতে না করা হয়।’