কুমিল্লায় ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালের কার্যক্রম উদ্বোধন

স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম বলেছেন, বর্তমান সময়ে গণমাধ্যম কর্মীদের ভূমিকা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। দেশ ও জাতির বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত সরবরাহের মাধ্যমে মানুষ এবং সরকারের মধ্যে একটি যোগসূত্র সৃষ্টি করে বাংলাদেশকে এগিয়ে যাওয়ার জন্য গণমাধ্যম কর্মীরা কাজ করছেন। বুধবার (৩ জুন) দুপুরে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালের আইসিইউ ও ১৫৪ শয্যা বিশিষ্ট ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালের কার্যক্রম উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি একথা বলেন।

এ সময় কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও সদর আসনের এমপি আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার, কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের মেয়র মো. মনিরুল হক সাক্কু, জেলা প্রশাসক মো. আবুল ফজল মীর ও পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম, কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. মোস্তফা কামাল আজাদ, কুমেক হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. মুজিবুর রহমান, জেলা সিভিল সার্জন ডা. মো. নিয়াতুজ্জামান এবং স্বাস্থ্য বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

কুমেক হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. মুজিবুর রহমান জানান, ‘করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার্থে এ হাসপাতালের জরুরী বিভাগের ভবনটিকে ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালের জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে। এখানে রোগীদের জন্য ১০টি আইসিইউ শয্যাসহ ১৫৪টি শয্যার মাধ্যমে সেবা কার্যক্রম পরিচালনা করবে কুমেক হাসপাতাল।

চিকিৎসাধীন রোগীদের জন্য পৃথক ফটকের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এই চিকিৎসা কেন্দ্র স্থাপনের ফলে কুমিল্লাসহ আশপাশের অন্ত ছয় জেলায় করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসার দুয়ার উন্মোচিত হয়েছে।’