শতবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ৯৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

শতবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ৯৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী আজ



অনলাইন ডেস্ক, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

আজ বুধবার দেশের উচ্চশিক্ষার শীর্ষ প্রতিষ্ঠান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৯৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। শতবর্ষে পা দিতে যাচ্ছে বাংলাদেশের জন্ম-ইতিহাসের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত এই প্রতিষ্ঠানটি। করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে স্বল্প পরিসরে ৯৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।


এদিকে, দেশের সব সংকট মুহূর্তে মুক্তির পথ দেখানো বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীরা ভালো নেই। নিজেদের মেধার পরিচয় দিয়ে এ বিদ্যাপীঠে ভর্তি হয়েও তারা আবাসন সংকট, যানবাহন সংকট, ক্লাসরুম সংকটসহ নানা সংকট থেকে রেহাই পাচ্ছে না।



ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনকালে স্বাধীন জাতিসত্তার বিকাশের লক্ষ্যে বিশ শতকের দ্বিতীয় দশকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার প্রক্রিয়া শুরু হয়। ১৯২১ সালের ১ জুলাই শিক্ষার্থীদের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়টির দ্বার উন্মুক্ত হয়। সে সময়কার ঢাকার সবচেয়ে অভিজাত ও সৌন্দর্যমণ্ডিত রমনা এলাকায় প্রায় ৬০০ একর জমির ওপর পরিবেশ গড়ে ওঠে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। প্রতিষ্ঠাকালে তিনটি অনুষদ ও ১২টি বিভাগ নিয়ে একটি আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে এর যাত্রা শুরু হয়। প্রথম শিক্ষাবর্ষে বিভিন্ন বিভাগে ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা ছিল ৮৭৭ জন এবং শিক্ষক সংখ্যা ছিল মাত্র ৬০ জন।


ঢাবির শতবর্ষ নিয়ে শিক্ষাবিদ ও ঢাবির ইংরেজি বিভাগের সাবেক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, প্রথম ৭০ বছর আমরা অত্যন্ত ভালোভাবে এগিয়ে গেছি। আমাদের শিক্ষার মান ছিল। বড় বড় নামকরা পণ্ডিত ছিলেন।


তবে সেই ঐতিহ্য আমরা হারিয়ে ফেলেছি। শিক্ষার মানের ক্ষেত্রে আমরা প্রত্যাশিত অর্জন করতে পারিনি। তবে কিছু শিক্ষক-শিক্ষার্থী একটা মান ধরে রাখার জন্য চেষ্টা করছেন। যদিও পরিমাণগত দিক থেকে শিক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েছে, ইন্সটিটিউট সংখ্যা বেড়েছে, বিভাগের সংখ্যা বেড়েছে, সংখ্যার দিক থেকে আমাদের যা প্রয়োজন সবই আছে তবে মানের ক্ষেত্রে একটা শূন্যতা দেখতে পাচ্ছি। আর এ শূন্যতা না কাটলে বিশ্ববিদ্যালয় একটা উন্নত কোচিং সেন্টারে পরিণত হবে।


বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণার কথা উল্লেখ করে ড. সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, বিজ্ঞানে এখানে প্রথাসিদ্ধ পাঠ হয়। মৌলিক গবেষণা ঢাবিতে খুবই কম হয়। আর যেসব প্রবন্ধ এ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রকাশিত হয় সেগুলো আন্তর্জাতিক মানের নয়। আর এগুলো রিভিউ করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্তর্জাতিক কোনো রিভিউআরও নেই। পাশাপাশি কলকাতা, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের দিকে তাকালে দেখা যায় তাদের অনেক গবেষণা। কারণ তাদের ইনকাম আছে, তাদের ইন্ডাস্ট্রি তাদের সাপোর্ট দিচ্ছে। নেপালের তিনটা স্কপার ইনডেক্সে জার্নাল আছে আমাদের একটাও নেই। আমরা কখনও র‌্যাংকিংয়ে উঠতে পারি না। উঠলেও আবার হারিয়ে যাই। আমার মতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম ১০০টার মধ্যে থাকার কথা ছিল।


বিশ্ববিদ্যালয় আবাসন সংকট নিয়ে ড. সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, আমি যখন ঢাবিতে ভর্তি হই তখন আবাসন সমস্যা ছিল না। আমি ৬৮ সালের দিকে ভর্তি হই তখন একটা সুবিধা ছিল যে পরিমাণ আবাসিক সিট রয়েছে সেটাকে মাথায় রেখে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হতো। স্বাধীনতার পর চাপ বাড়তে থাকলে আমরা ছাত্র সংখ্যা বাড়িয়েছি কিন্তু আবাসনের ব্যবস্থা করিনি। এরপর শুরু হয়ে গেল গণরুম, গেস্টরুম কালচার। এটা এখন একটা ভয়াবহ সংস্কৃতিতে পরিণত হয়ে গেছে। তবে এ সংকট কৃত্রিমভাবে বাড়িয়ে রাখা হয়েছে। সরকার চেষ্টা করলে এর সমাধান করতে পারে।


পূর্বের সংবাদ