সম্পদের পাহাড় না গড়ে সমাজসেবা করুন: এলজিআরডিমন্ত্রী

স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে সরকারি সহায়তা তসরুপসহ নানা অর্থনৈতিক অনিয়মে জড়িত থাকার খবর গণমাধ্যমে উঠে আসে। এসব ঘটনায় জনপ্রতিনিধিদের বরখাস্তও হতে হয়। তাই জনপ্রতিনিধিদের নিজেদের জন্য অর্থ-সম্পদের পাহাড় না গড়ে মানবসেবা করার তাগিদ দিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী তাজুল ইসলাম।

সুবিচার ও সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে কাজ করার পাশাপাশি অর্পিত দায়িত্ব যথাযথ পালন করে দেশের উন্নয়নের সাথে সম্পৃক্ত হওয়ারও আহ্বান জানিয়েছেন মন্ত্রী।

বৃহস্পতিবার কাকরাইলে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও মেম্বার কল্যাণ ট্রাস্ট আয়োজিত মৃত্যুবরণকারী চেয়ারম্যান, মেম্বারদের পরিবার ও চিকিৎসা গ্রহণকারী সদস্যদের মাঝে আর্থিক সহায়তা প্রদান অনুষ্ঠানে এ আহ্বান জানান মন্ত্রী।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, আমরা মেম্বার-চেয়ারম্যান, এমপি ও মন্ত্রী হয়েছি নিজ নিজ এলাকার মানুষের উন্নত জীবন দেয়ার জন্য। দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন করার জন্য। অর্থ-সম্পদের মালিক হওয়ার জন্য নয়।

মন্ত্রী বলেন, চেয়ারম্যান-মেম্বারদের শিক্ষাগত যোগ্যতা নির্ধারণ করার চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ তিনি জনবান্ধব, মানবপ্রেমী কিংবা দেশপ্রেমিক কিনা। কারণ শিক্ষিত মানুষ হলেই ভালো হবে আর অশিক্ষিত হলেই খারাপ হবে এমনটা বলা যাবে না।

তাজুল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন দেশের ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়ার কথা বলেছেন, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হওয়ার কথা বলেছেন, দেশকে ডিজিটাল করার ঘোষণা দিয়েছেন, তখন অনেকেই এসব নিয়ে হাস্যরস করেছে। কিন্তু এখন এসব বাস্তবতা।

শেখ হাসিনা যা ঘোষণা দেন তা বাস্তবায়ন করেন উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশকে ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণের যে ঘোষণা শেখ হাসিনা দিয়েছেন তা তার আগেই বাস্তবায়িত হবে। প্রধানমন্ত্রীর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দেশ এখন উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় অপ্রতিরোধ্য।

করোনা মহামারির মধ্যেও জীবনের ঝুঁকি নিয়ে জনপ্রতিনিধিরা দেশ সেবায় আত্মনিয়োগ করেছেন, এজন্য মন্ত্রী সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

এসময় স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বাংলাদেশ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও মেম্বার কল্যাণ ট্রাস্টে এক কোটি আর্থিক সহায়তা প্রদানের ঘোষণা দেন।

আজ ২৩ জনের (৫ জন চেয়ারম্যান ও ১৮ জন ইউপি মেম্বার) পরিবারকে ২২ লাখ ৮০ হাজার টাকা আর্থিক সহযোগিতা করা হয়েছে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, চেয়ারম্যান-মেম্বারদের সাথে গ্রামীণ মানুষের নাড়ির সম্পর্ক রয়েছে। তারাই সবসময় সুখে-দুঃখে মানুষের পাশে দাঁড়ান।

অনুষ্ঠানে ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ও স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মুস্তাকীম বিল্লাহ ফারুকী সভাপতিত্ব করেন।

ইউনিয়ন পরিষদসমূহের নির্বাচিত সাবেক ও দায়িত্ব পালনরত চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের সার্বিক কল্যাণ সেবা প্রদানের লক্ষ্যে বাংলাদেশ ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান-মেম্বার কল্যাণ ট্রাস্ট গঠিত হয়।