ইসলামী ১২ দলের সাথে পুলিশের সংঘর্ষে বায়তুল মোকাররম রণক্ষেত্র

ঢাকা, ১২ অক্টোবর (খবর তরঙ্গ ডটকম)- রাজধানীর পল্টনে বায়তুল মোকাররম মসজিদ এলাকায় ইসলামী সমমনা ১২ দলের সঙ্গে পুলিশের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বিপুল সংখ্যক রাবার বুলেট ও কাঁদানে গাসের শেল ছুড়েছে পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে আটক করা হয়েছে শতাধিক নেতাকর্মীকে। সংঘর্ষের কারণে প্রেসক্লাব থেকে মতিঝিল পর্যন্ত সড়কে প্রায় এক ঘণ্টা যান চালাচল বন্ধ থাকে।

শুক্রবার জুমা’র নামাজের পর আটককৃতদের মধ্যে খেলাফত আন্দোলনের সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতি ফখরুলও রয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, জুমার নামাজের পর মসজিদের উত্তর গেট থেকে ইসলামী ও সমমনা ১২ দলের নেতা-কর্মীরা মিছিল বের করলে পুলিশ বাধা দেয়। এতে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেঁধে যায়।

একপর্যায়ে মসজিদের পূর্বগেট থেকেও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে পুলিশ। এরপর পল্টন মোড়, দৈনিকবাংলা মোড় ও বিজয়নগরসহ আশপাশের এলাকায় পুলিশ ও বিক্ষোভকারীদের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয়।

পুলিশ অর্ধশতাধিক টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। জবাবে বিক্ষোভকারীরাও পাল্টা-ইটপাটকেল ছোঁড়ে। একপর্যায়ে মসজিদের ভেতরেও টিয়ারশেলের গ্যাস ছড়িয়ে পড়ায় মুসল্লিরা দৌড়াদৌড়ি শুরু করেন।

পুলিশের মতিঝিল বিভাগের উপ কমিশনার আনোয়ার হোসেন বলেন, “১২টি ইসলামী সমমনা দল যখন মিছিল বের করে, অনুমতি না থাকায় আমরা তাদের নিষেধ করেছিলাম। কিন্তু তারা ব্যাগভর্তি ইট পাটকেল নিয়ে দুই ভাগে মিছিল বরে করে এবং পুলিশের ওপর হামলা চালায়।”

এ সময় ভবনের ওপর থেকে পুলিশের দিকে ককটেলও নিক্ষেপ করা হয় বলে এই পুলিশ কর্মকর্তা অভিযোগ করেন।

আনোয়ার হোসেন বলেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কাঁদানে গ্যাসের ৩০-৪০টি শেল ৪০ রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়া হয়েছে। সংঘর্ষের ঘটনায় আহত ৫ পুলিশ সদস্যকে রাজারবাগ পুলিশ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, গত মাসে যারা প্রেসক্লাবের সামনে বিশৃঙ্খলা করেছিল, তারাই এ ঘটনা ঘটিয়েছে।

ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলেও জানান ডিসি আনোয়ার হোসেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।