অনুমতিতে কিছু যায় আসে না,বুধবার সমাবেশ হবেই, এটাই শেষ কথা:১৮ দলীয় জোট - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

অনুমতিতে কিছু যায় আসে না,বুধবার সমাবেশ হবেই, এটাই শেষ কথা:১৮ দলীয় জোট



(খবর তরঙ্গ ডটকম)

ঢাকা, ২৭ নভেম্বর (খবর তরঙ্গ ডটকম)-  সমাবেশের জন্য এখনও অনুমতি পাওয়া যায়নি। অনুমতি পাওয়া-না পাওয়া নিয়ে তাদের কিছু যায় আসে না। বুধবার নয়াপল্টনে সমাবেশ হবে, এটাই শেষ কথা।সমাবেশের প্রস্তুতি নিয়ে মঙ্গলবার দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ১৮ দলীয় জোট ঢাকা মহানগরের এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলা হয়।সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, সমাবেশের প্রচার-প্রচারণার কাজে প্রশাসনের পক্ষ থেকে নানাভাবে বাঁধা দেয়া হচ্ছে। সরকার গণতন্ত্রের সর্বশেষ অধিকারটুকু কেড়ে নিচ্ছে।

তিনি বলেন, এ সরকার রাষ্ট্র পরিচালনার শুরুর পর থেকেই গণতন্ত্রকে খাঁচায় বন্দি করে ফেলেছে। তারা মুখে গণতন্ত্রের কথা বললেও মূলত তারা গণতান্ত্রিক অধিকারগুলো বিনষ্ট করেছে। তারা জনগণের কাছে দেয়া প্রতিশ্রুতি একটিও পূরণ করেনি।

ফখরুল বলেন, ‘গোটা দেশে মানুষের মধ্যে এখন হাহাকার শুরু হয়েছে। জনগণের অধিকার ফিরিয়ে আনার জন্য আমরা বেগম জিয়ার নেতৃত্বে আন্দোলন করছি। এই আন্দোলনের অংশ হিসেবে নয়াপল্টনের সমাবেশ থেকে বেগম জিয়া কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করবেন।’

তিনি বলেন, ‘সাভারের আশুলিয়া ও চট্টগ্রামের বহদ্দারহাটের দুর্ঘটনার  ঘটনায় প্রমাণ হয়েছে সরকার চরম অবহেলার মধ্য দিয়ে দেশ পরিচালনা করছে। সরকারের কাছে আমাদের একটাই দাবি- তারা যেন নিহত শ্রমিকদের জন্য যথেষ্ট ক্ষতিপূরণ দেয়।’

বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা বলেছেন, ‘দেশে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে একটা ফ্যাসিস্ট সরকার দেশ শাসন করছে। আমরা সমাবেশের জন্য প্রচার-প্রচারণা করতে পারেনি। আমাদের নেতা-কর্মীদের বিভিন্ন জায়গায় বাধা দেয়া হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘সমাবেশের জন্য সরকার ও পুলিশের কাছে আমরা বহুদিন আগে আবেদন করেছিলাম। কিন্তু এখন অনুমতি দেয়া হয়নি। সরকার সমাবেশ শুরু হওয়ার কয়েক ঘন্টা আগে অনুমতি দিবে, যাতে আমরা ঠিকভাবে সমাবেশের প্রস্তুতি নিতে না পারি।’

খোকা বলেন, এ সরকারের জুলুম-অত্যাচারের বিরুদ্ধে ঢাকা মহানগর বিএনপি এমন আন্দোলন শুরু করবে, যাতে করে শেখ হাসিনা বাধ্য হয় নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে। আর এই আন্দোলন ক্রমেই দেশজুড়ে ছড়িয়ে পড়বে।

তিনি বলেন, ‘মঙ্গলবার দুপুর ২টায় ডিএমপি থেকে আমাদের আলোচনার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। কিন্তু আমরা সুস্পষ্টভাবে বলতে চাই- অনুমতিতে কিছু যায় আসে না। বুধবার সমাবেশ হবে, এটাই শেষ কথা।’

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলাম, যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল হাবিব দুলু, জামায়াত নেতা  ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ, এলডিপির খালেদ সাইফুল্লাহ, বিজেপির আবদুল মতিন সাউদ, এনডিপির জামিল আহমেদ, লেবার পার্টির মু. সামসুদ্দিন পারভেজ প্রমুখ।


রাজনীতি এর অন্যান্য খবরসমূহ
পূর্বের সংবাদ
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০