নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বাধ্যতামূলক করা উচিত:জাতীয় পার্টি

ঢাকা, ২৮ নভেম্বর (খবর তরঙ্গ ডটকম)- জাতীয় ও স্থানীয় পর্যায়ের সব নির্বাচনে সেনা মোতায়েন বাধ্যতামূলক করার দাবি জানিয়েছে জাতীয় পার্টি। বুধবার নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে নির্ধারিত সংলাপে প্রয়োজনে আইন সংস্কার করার সুপারিশ করেছে মহাজোটের শরিক দলটি। সেনাবাহিনীর প্রতি মানুষের ‘আস্থা’ রয়েছে জানিয়েছে দলের দলের মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার জানান, নির্বাচনে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অনেক সময় নির্বাচন কমিশনের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায় । “সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে সব ধরনের নির্বাচনে সেনাবাহিনীকে সম্পৃক্ত করার বিষয়টি বাধ্যতামূলক করা উচিত। সেনাবাহিনী থাকলেই নির্বাচন সুষ্ঠু হবে। প্রয়োজনে আমরা সংসদে বিল এনে পাস করিয়ে নেব। প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করবো যাতে সব নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েনের ব্যবস্থা নেয়া হয়।” নির্বাচনী আইনে এ সংক্রান্ত বিধান নিশ্চিতে ইসিকে ভূমিকা রাখতে হবে বলে জানান তিনি।

সাবেক সামরিক শাসক হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ নেতৃত্বাধীন দলটি বরাবরই সেনা মোতায়েনের পক্ষে কথা বলে এসেছে।

দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য মুজিবুল হক চুন্নু প্রস্তাব রাখেন, সীমানা নির্ধারণে ছোট সংশোধন করা যেতে পারে। কিন্তু বড় ধরনের কোনো পরিবর্তন আনলে বড় ধরনের ঝামেলা পোহাতে হবে।

দলীয় প্রার্থী হতে তিন বছর সদস্য পদ থাকার বাধ্যবাধকতার বিধানটি বাদ দেওয়ারও সুপারিশ করেন চুন্নু।

তিনি অভিযোগ করেন, অসৎ উদ্দেশ্যে গত তত্ত্বাবধায়ক সরকার রাজনৈতিক দলগুলোকে ভাঙ্গার জন্য এ আইন করেছিল।

দলের কেন্দ্রীয় নেতা কাজী ফিরোজ রশীদ নির্বাচন কমিশনের কঠোর সমালোচনা করেন।

“পাবলিক পারসেপশন হচ্ছে- আপনারা নিরপেক্ষ নয়। আপনারে ওপর জনগণের আস্থা কম। ডিসিসি নির্বাচনে প্রার্থী হয়ে আমি দেখেছি, ইসি নিরপেক্ষ ভূমিকা পালন করেন নি। আস্থা অর্জনে আপনাদের কাজ করতে হবে।”

জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে সংসদীয় আসন বাড়ানোর উদ্যোগ নিতে ইসির প্রতি অনুরোধ জানানো হয়।

সীমানা পুননির্ধারণ নিয়ে জটিলতার কারণে বর্তমান সীমানাতেই আগামী নির্বাচন করার প্রস্তাব দেন কাজী ফিরোজ।

নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে উপস্থিত ছিলেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দিন আহমদ, নির্বাচন কমিশনার মো. জাবেদ আলী, মো. আব্দুল মোবারক, মো. আবু হাফিজ, মো. শাহ নেওয়াজ, যুগ্ম সচিব জেসমিন টুলী।

জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে সংলাপে অংশ নেয় পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার, মুজিবুল হক চুন্নু, কাজী ফিরোজ রশিদ, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল অব. কাজী মাহমুদ হাসান, ফয়সাল চিশতী, রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, তাজুল ইসলাম প্রমুখ।

সকালে শেরে বাংলা নগরের নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের সম্মেলন কক্ষে জাতীয় পার্টির সঙ্গে ইসির সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোটের শরিক জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি-জাগপা সংলাপে অংশ নেয় নি।

বেলা ১২টা থেকে জাতীয় পার্টি সংলাপে অংশ নেয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।