বিরোধী দলের নেতাদের বিরুদ্ধে ‘মিথ্য মামলা’ দিয়ে আন্দোলন দমানো যাবে না: ফখরুল

ঢাকা, ডিসেম্বর ১০ (খবর তরঙ্গ ডটকম)-  বিরোধী দলের নেতাদের বিরুদ্ধে ‘মিথ্য মামলা’ দিয়ে আন্দোলন দমানো যাবে না বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। অবরোধের সময় গাড়ি ভাংচুরের অভিযোগে পল্টন থানায় মির্জা ফখরুলসহ দুই শতাধিক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা হওয়ার খবরে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “এই সরকার ক্ষমতায় যাওয়ার পর থেকেই মিথ্যা মামলা দিয়ে বিরোধী দলের আন্দোলনকে স্তব্ধ করার তৎপরতায় লিপ্ত রয়েছে। আমরা বলতে চাই, এভাবে মামলা-হামলা করে নির্দলীয় সরকারের আন্দোলন বন্ধ করা যাবে না। বিএনপিকে দমানো যাবে না।”

নির্দলীয় সরকার ব্যবস্থা পুনর্বহালের দাবিতে রোববার ভোর ৬টা থেকে আট ঘণ্টা অবরোধ কর্মসূচি পালন করে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলীয় জোট। এ সময় ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায় বিরোধী দলের নেতাকর্মীরা। ভাংচুর করা হয় শতাধিক যানবাহন।

সাভারে সংঘর্ষ চলাকালে আহত বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নাজিম উদ্দিন আলমকে দেখতে সোমবার সকালে স্কয়ার হাসপাতালে যান ফখরুল। এরপর তিনি কাকরাইলের ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালে যান অবরোধ কর্মসূচিতে আহত ঢাকা আইনজীবী সমিতির সাংস্কৃতিক সম্পাদক সৈয়দা শাহিন আরা লাইলী, অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত উল্লাহ খান আনু, আবু জাফর ও এখলাস উদ্দিনকে দেখতে। সেখানেই সাংবাদিকদের সঙ্গে মামলার বিষয়ে কথা বলেন তিনি।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, “গতকাল শান্তিপূর্ণ অবরোধ কর্মসূচিতে ক্ষমতাসীন দলের সশস্ত্র লোকজন যেভাবে আক্রমণ-নির্যাতন চালিয়েছে, আজকের গণমাধ্যমে তা প্রকাশ পেয়েছে। কারা অবরোধে পিস্তল, রাম দা, চাইনিজ কুরাল, রড নিয়ে বিরোধী দলের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছে, সবার কাছে আজ তা পরিষ্কার।”

তিনি অভিযোগ করেন, আওয়ামী লীগের ‘সন্ত্রাসী হামলা থেকে’ আইনজীবীরাও রক্ষা পাচ্ছেন না।

ফখরুল আহত আইনজীবীদের খোঁজ-খবর নেন এবং তাদের স্বাস্থ্যের অবস্থা চিকিৎসকদের কাছে জানতে চান।

স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নাজিম উদ্দিন আলমের অবস্থা সম্পর্কে মির্জা ফখরুল বলেন, “অবরোধের দিন তার বুকে শটগান ঠেকিয়ে গুলি করা হয়েছে। তার পেটে ও লিভারে গুলি লেগেছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলেছেন চিকিৎসকরা।”

আওয়ামী লীগকে ‘হামলার এই অশুভ’ পথ থেকে সরে আসার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, তা না হলে জনগণ এর জবাব দেবে।

অন্যদের মধ্যে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সাইদুর রহমান, ঢাকা আইনজীবী সমিতির জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মাসুদ আহমেদ তালুকদার, আবুল কালাম, আবদুল খালেক মিলন এ সময় হাসপাতালে উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।