জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নেতা সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরসহ সাতজনকে ৭ দিন করে রিমান্ডে

রাজধানীর রামপুরায় পুলিশের ওপর হামলা ও ভাংচুরের দুটি মামলায় জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নেতা সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরসহ সাতজনকে ৭ দিন করে রিমান্ডে পাঠিয়েছে ঢাকার আদালত।  ঢাকার দ্রুত বিচার হাকিম হারুনুর রশিদ এবং মহানগর হাকিম সাইফুর রহমানের আদালত বৃহস্পতিবার রিমান্ডের আবেদন মঞ্জুর করেন। জামায়াত-শিবির কর্মীদের গাড়ি ভাংচুর এবং পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষের ঘটনায় রামপুরা থানায় দায়ের করা দুটি মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বৃহস্পতিবার এই আবেদন করা হয়। মামলা দুটির তদন্ত কর্মকর্তা রামপুরা থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আরিফ হোসেন আসামিদের আদালতে হাজির করে দ্রুত বিচার আইনের একটি মামলায় পাঁচ দিন এবং ফৌজদারী দণ্ডবিধিতে করা আরেক মামলায় সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন।

অন্যদিকে আব্দুল্লাহ তাহেরসহ আসামিদের জামিন চেয়ে আবেদন করেন তাদের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আব্দুর রাজ্জাক।

শুনানি শেষে দ্রুত বিচার আইনের মামলায় চার দিন হেফাজতে নিয়ে আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন ঢাকার দ্রুত বিচার হাকিম হারুনুর রশিদ।

আর মহানগর হাকিম সাইফুর রহমান ফৌজদারী দণ্ডবিধির মামলায় তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

দুই মামলাতেই আসামিদের জামিন আবেদন খারিজ করে দেয়া হয়।

বুধবার দুপুরে জামায়াতে ইসলামীর একদল কর্মী যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত নেতাদের মুক্তি দাবিতে রাজধানীর রামপুরায় মিছিল করতে গিয়ে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায়।

এরপর সন্ধ্যায় খিলগাঁওয়ে এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে আব্দুল্লাহ তাহেরকে গ্রেপ্তার করে র্যাব। বাকি ছয় আসামিকেও বিভিন্ন স্থান থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এরা হলেন- মো. মাইনুদ্দীন, আবু তাহের, নাঈমুর রহমান, আরিফুর রহমান, আব্দুল আহাদ ও আব্দুর রহমান।

দ্রুত বিচার আইনের মামলায় মোট ৭ জন এবং দণ্ডবিধির মামলায় ৩৪ জনের নাম আসামির তালিকায় থাকলেও তাহেরসহ এই সাতজনের নাম দুই মামলারই আসামি।

জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদের সদস্য তাহের কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের সংসদ সদস্য ছিলেন। তিনি ইসলামী ছাত্রশিবিরের সাবেক সভাপতি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।