খুলনায় টেলিফোন সারেন্ডারের হিড়িক: লাইন রেন্ট দ্বিগুণ - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

খুলনায় টেলিফোন সারেন্ডারের হিড়িক: লাইন রেন্ট দ্বিগুণ



খুলনা, (খবর তরঙ্গ ডটকম)
খুলনার বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিমিটেডের (বিটিসিএল) টেলিফোন সংযোগ স্যারেন্ডারের (বিচ্ছিন্ন করার আবেদন) হিড়িক পড়েছে। জানুয়ারি মাসের প্রথম তিন দিনেই আবেদন করেছেন ২৯ জন গ্রাহক। ডিসেম্বর মাসেও ৪৩ জন গ্রাহক তাদের টেলিফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেছেন। কোনো ধরনের পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই টেলিফোন লাইন  রেন্ট ও কলচার্জ বৃদ্ধি করায় বিক্ষুব্ধ গ্রাহকরা এই পথ বেছে নিয়েছেন। গ্রাহকরা জানান, দুর্বল পরিসেবা ও রক্ষণাবেক্ষণে কর্তৃপক্ষের অবহেলা ও উদাসীনতার কারণে দেশের দক্ষিণাঞ্চলে সরকারি টেলিফোনের প্রতি গ্রাহকদের আগ্রহ কম। তার ওপর ঘোষণা ছাড়াই লাইন রেন্ট দ্বিগুণ করায় মানুষ আরো বেশি বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে।
বিটিসিএল সূত্রে জানা গেছে, গত ১৫ অক্টোবর বিটিসিএল’র ৮২তম বোর্ড সভায় ল্যান্ডফোনের লাইন ও কলচার্জ বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সভায় খুলনা, ঢাকা ও চট্টগ্রাম মাল্টি একচেঞ্জ এরিয়ায় লাইন রেন্ট ৭০ টাকা থেকে এক লাফে দ্বিগুণেরও বেশি বৃদ্ধি করে ১৬০ টাকা করা হয়। এই এলাকার গ্রাহকদের আগে যেখানে ১৫ শতাংশ ভ্যাটসহ ৮১ টাকা মাসিক লাইন রেন্ট প্রদান করতে হতো, এখন সেখানে গুণতে হবে ১৮৪ টাকা। সে হিসেবে প্রতি গ্রাহককে প্রতি মাসে ১০৩ টাকা করে বাড়তি অর্থ প্রদান করতে হবে। সেই সঙ্গে বিটিসিএল থেকে মোবাইলসহ অন্যান্য অপারেটরে কলচার্জ ৬৫ পয়সা  থেকে ১৫ পয়সা বৃদ্ধি করে ৮০ পয়সা করা হয়েছে।
২৬ অক্টোবর থেকে এ সিদ্ধান্ত কার্যকরের নির্দেশনা দিয়ে কর্তৃপ খুলনা, ঢাকা ও চট্টগ্রাম মাল্টি একচেঞ্জসহ নিয়ন্ত্রণাধীন কার্যালয়গুলোতে দাফতরিক পত্র পাঠায়।  নভেম্বর মাসের বিলে বাড়তি এ চার্জ বসানো হয়েছে। গ্রাহকরা ডিসেম্বর মাসে এই বিল হাতে পেয়ে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে।
খুলনা টেলিযোগাযোগ অঞ্চলের একটি সূত্র জানায়, ডিসেম্বর মাসে বিল হাতে পেয়ে গ্রাহকরা ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখাতে শুরু করেন। ডিসেম্বরের শেষ সপ্তাহে বিল পাঠানোয় গ্রাহকরা আরো বেশি বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। ওই মাসে ৪৩ জন গ্রাহক তাদের টেলিফোন সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার আবেদন করেন। জানুয়ারির শুরুতে এটি আরো ব্যাপক রূপ লাভ করে। মাসের প্রথম তিন দিনেই সংযোগ বিচ্ছিন্নের আবেদন করেছেন ২৯ জন। আবেদনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন আরো অনেকে।
টেলিফোন সংযোগ বিচ্ছিন্নের আবেদন করা নিরালা এলাকার গ্রাহক ইব্রাহিম খলিল জানান, যেখানে  টেলিটক ও বেসরকারি মোবাইল অপারেটররা  সেলফোন নিয়ে নিত্যনতুন অফারে গ্রাহকদের মনোযোগ আকর্ষণে ব্যস্ত,  সেখানে বিটিসিএল আকস্মিকভাবেই লাইন রেন্টসহ কলচার্জ বৃদ্ধি করায় মানুষ ক্ষুব্ধ। তাদের অনেকেই জানান, ৮১ টাকার লাইন রেন্ট ১৮৪ টাকা করায়  টেলিফোন ব্যবহারের ইচ্ছে নষ্ট হয়ে গেছে।
এ ব্যাপারে বিটিসিএল-এর বিভাগীয় প্রকৌশলী শেখ অহিদুজ্জামান বলেন, ‘কর্তৃপক্ষ ছয় মাসের জন্য পরীক্ষামূলক হিসেবে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রয়োজনে সিদ্ধান্ত বাতিলের সুপারিশ করা হবে।

রাজনীতি এর অন্যান্য খবরসমূহ
পূর্বের সংবাদ