‘আওয়ামী লীগ আজ ক্ষমতায় বলেই না আপনি মাহবুবে আলম অ্যাটর্নি জেনারেল হয়েছেন: আব্দুল মতিন খসরু

আওয়ামী লীগ সরকারের সাবেক আইনমন্ত্রী ও সুপ্রিম কের্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী আব্দুল মতিন খসরু অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ আজ ক্ষমতায় বলেই না আপনি মাহবুবে আলম অ্যাটর্নি জেনারেল হয়েছেন। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না থাকলে জীবনেও আপনি অ্যাটর্নি হতে পারতেন না।’ তিনি শনিবার সুপ্রিম কোর্টে ‘সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের’ কেন্দ্রীয় সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সভায় এসব কথা বলেন।

আব্দুল মতিন খসরু বলেন, ‘আমি আমার কলমে আপনাকে এডিশনাল অ্যাটর্নি বানিয়েছি। অনেকে অনেক কথা বলেছিলেন, আমি বলেছি তিনি গণফোরাম করুক, যাই করুক। আমি তাতে কান দেয়নি।’ এ সময় তিনি আইনমন্ত্রী ব্যারিস্টার শফিক আহমেদকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘আগামী ১২ জানুয়ারি গণভবনে নেত্রীর কাছে যাওয়ার আগে এ সমস্যার সমাধান করুন। আপনার ভূমিকা আপনি পালন করুন।’ মতিন আরো বলেন, ‘যারা আজকে বিরোধিতা করছে খোঁজ নিয়ে দেখেন তাদের কেউ আওয়ামী লীগ, যুবলীগের সাথে সম্পৃক্ততা ছিল না।’ সভায় ডাক ও টেলিযোগযোগমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন বলেন, ‘যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হচ্ছে। ঠিক এই মুহূতে আব্দুল বাসেত মজুমদার কিছু লোক নিয়ে আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ ভাঙার ষড়যন্ত্র করছেন। এটা কিছুতেই করতে দেয়া যায় না।’ আইনজীবী আব্দুল বাসেত মজুমদার ও ইউসুফ হোসেন হুমায়ূনকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘লিখিত ওয়াদা দিয়েও কেন তারা কথা রাখলেন না। তা আমার বোধগম্য নয়।’

সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ গঠনের মূল কমিটিতে বাসেত মজুমদারের নাম ছিল না উল্লেখ করে সাহারা বলেন, ‘কিভাবে তিনি আইনজীবীদের সাথে এভাবে প্রতারণা করেন। বাসেত মজুমদার সাহেব বেআইনিভাবে কমিটি গঠন করেছেন। এই বেআইনি কাজ তাকে করতে দেয়া যায় না।’ তিনি আরো বলেন, ‘সমন্বয় পরিষদ নিয়ে সৃষ্ট সমস্যা সমাধানের আইনমন্ত্রী কথা দিয়েছেন। অথচ এখনো সমাধানের কোন উদ্যোগ নিতে দেখছি না।’ এ সময় সাহারা খাতুন আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের কেন্দ্রীয় সম্মেলনের প্রস্তুতির ৫০১ সদস্য বিশিষ্ট একটি  কমিটি গঠনের ঘোষণা দেন এবং অনুষ্ঠান বাস্তবায়নে কয়েকটি উপ কমিটি গঠন করে তাদের নাম ঘোষণা করেন। প্রস্তুতি সভায় সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সহ-সভাপতি কে এম সাইফুদ্দিনসহ অধিকাংশ বক্তারা আইনমন্ত্রী শফিক আহমেদ ও অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের সমালোচনা করে বক্তব্য দেন।

তারা বলেন, ‘অ্যাটর্নি জেনারেল জীবনে কোন দিন আওয়ামী লীগ করেননি। তার পরিবারের কারো আওয়ামী লীগর সাথে সম্পর্ক নেই। তিনি কিভাবে অ্যাটর্নি জেনারেল হলেন?’ অনুষ্ঠানে সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের খসড়া গঠনতন্ত্র উপস্থাপন করা হয়। আগামী ১২ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বাসভবন গণবভনে আইনজীবী নেতাদের নিয়ে বৈঠক বসবেন বলেও অনুষ্ঠান থেকে জানানো হয়।

সভায় জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলাম বলেন, সম্প্রতি সমন্বয় পরিষদের নামে গত ২৪ নভেম্বর যে কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে তা সুপ্রিম কোর্ট তথা আইন অঙ্গনে ইতিহাসের কখনো ঘটেনি।

তিনি বলেন, ‘এ ধরনের ষড়যন্ত্রের সুবিধা পাচ্ছে বিএনপি-জামায়াত। এ ঘটনায় আমি হতাশ নয়। কেন না এতে একদিকে যেমন হতাশা রয়েছে, অন্যদিকে আর্শিবাদও রয়েছে। এমন ষড়যন্ত্রে বঙ্গবন্ধুও পড়েছিলেন কিন্তু তিনি সকল ষড়যন্ত্র অতিক্রম করে এগিয়ে গেছেন।’  আমীর-উল ইসলাম বলেন, আগামী এপ্রিল মাসের যে কোনো সময় প্রধানমন্ত্রীর সময় অনুযায়ী কেন্দ্রীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সমন্বয় পরিষদের নতুন সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন নেতৃত্ব উঠে আসবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুনের সভাপতিত্বে সমন্বয় পরিষদের সম্মেলনের প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শাজাহান মিয়া, সাবেক আইনমন্ত্রী আব্দুল মতিন খসরু, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক নুরুল ইসলাম সুজন, সমন্বয় পরিষদের সদস্য সচিব সুব্রত চৌধুরী, আইনজীবী সমিতির সহ-সভাপতি এ কে এম সাঈফুদ্দিন, আব্দুল্লাহ আবুসহ দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা আইনজীবীরাও সভায় বক্তব্য রাখেন।

উল্লেখ্য, গত ২৪ নভেম্বর অভ্যন্তরীণ বিরোধের জের ধরে সরকার সমর্থক আইনজীবীদের সংগঠন সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ ভেঙে আরেকটি কমিটির গঠন করা হয়।

ওইদিন সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গনে দুইপক্ষ প্রকাশ্যে পাল্টাপাল্টি সভা করে। সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের বর্তমান আহ্বায়ক ব্যারিস্টার এম আমীর-উল ইসলামকে পাশ কাটিয়ে বার কাউন্সিলের সাবেক ভাইস-চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আব্দুল বাসেত মজুমদারকে নতুন আহ্বায়ক হিসেবে ঘোষণা দেয়া হয়।

অন্যদিকে ব্যারিস্টার এম আমীর -উল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত পৃথক এক সভা থেকে নতুন কমিটি করার জন্য সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুনকে আহ্বয়াক করে ১০১ সদস্যের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয়।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।