পুলিশের আচরণ দেখে মনে হয়েছে, জামায়াত-শিবিরকে সালাম করতে প্রধানমন্ত্রী পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

পুলিশের আচরণ দেখে মনে হয়েছে, জামায়াত-শিবিরকে সালাম করতে প্রধানমন্ত্রী পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন



ঢাকা, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

রবিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর মহানগর নাট্যমঞ্চে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী তৃণমূল দলের ষষ্ঠ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, “এর আগে পুলিশের ঊর্ধ্বতন মহল থেকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে, ‘জামায়াত-শিবির দেখা মাত্র গুলি করো’। অথচ গতকাল (শনিবার) বিভিন্ন জায়গায় পুলিশের আচরণ দেখে মনে হয়েছে, জামায়াত-শিবিরকে সালাম করতে প্রধানমন্ত্রী পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে মনে হচ্ছে, যেন সরকার জামায়াতের সঙ্গে জোট বাঁধতে চাইছে।”

প্রধানমন্ত্রী জামায়াতের উদ্দেশে রবি ঠাকুরের গান ‘এসো এসো মোর ঘরে এসো, বাইরে নয় অন্তরে এসো’ গান গাইছেন- এমন মন্তব্য করে বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, “এই সালামের মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রী জামায়াতকে দাওয়াত দিয়ে জোট করতে চাইছেন।”

গয়েশ্বর আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, “শোনা যাচ্ছে, দুই বারের বেশি কেউ প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হতে পারবেন না, সে কারণে সরকার সংবিধান সংশোধনের উদ্যোগ নিচ্ছে। শেখ হাসিনা দুইবার প্রধানমন্ত্রী হয়েছে, তাই এখন তার বোন শেখ রেহানাকে দুইবার প্রধানমন্ত্রী করার জন্য সংবিধান সংশোধন করা হবে।”

সরকার সংবিধানকে পারিবারিক সম্পদের মতো ভাগ করছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

গয়েশ্বর বলেন, “গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষার জন্য অবাধ শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতার পালাবদল আমরা চাই। আর সে কারণেই নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকার থাকতে হবে।”

‘প্রধানমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনকে রক্ষা করতে গিয়ে পদ্মা সেতু বিসর্জন দিয়েছেন’- এমন অভিযোগ করে আগামীতে এই ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি হবে না- বিএনপিকে এমন  নিশ্চয়তা দিতে হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বিএনপির সংস্কারপন্থিদের ‘মতলববাজ’ আখ্যা দিয়ে স্থায়ী কমিটির সদস্য আ স ম হান্নান শাহ বলেন, “জামায়াতের আন্দোলন ঠেকানোর জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীর মিশর সফর করেছেন।”

তৃণমূল দলের সভাপতি মো. হানিফ বেপারীর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য দেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু, যুগ্ম মহাসচিব বরকত উল্লাহ বুলু, সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম আকবর খোন্দকার, অর্থনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সালাম, জাতীয়তাবাদী যুব দলের সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম ও শাম্মী আক্তার এমপি প্রমুখ। পরে এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।


রাজনীতি এর অন্যান্য খবরসমূহ
পূর্বের সংবাদ