রাজধানীতে পুলিশ-বিএনপি সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ আলাল

‘গণহত্যা’র প্রতিবাদে ও ‘গণতন্ত্র রক্ষা’য় পূর্ব ঘোষিত বিক্ষোভ মিছিল করার সময় নয়াপল্টন, কাকরাইল, মালিবাগ ও মৌচাক মার্কেট এলাকায় বিএনপির নেতা-কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে।প্রধান বিরোধী দল বিএনপির নেতাকর্মীদের সঙ্গে রাজধানীর মালিবাগ ও মৌচাক এলাকায় পুলিশের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এতে মালিবাগ ও আশেপাশের এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এ সময় যুবদল সভাপতি সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তার ডান পায়ের গোড়ালিতে গুলি লেগেছে। এছাড়া আরো বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, নয়াপল্টনের সমাবেশ শেষে শনিবার বিকেল চারটার দিকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে প্রথম অংশ মালিবাগ পার হওয়ার সময় মধ্যভাগ শান্তিনগরে বাধার মুখে পড়ে। এসময় বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা একটি গাড়িতে আগুন দেয় এবং মালিবাগের পুলিশ বক্স ভাঙচুর করে। এরপর পুলিশের সঙ্গে বিএনপি কর্মীদের সংঘর্ষ শুরু হয়।

এসময় পুলিশ কয়েক শ’ রাউন্ড টিয়ার শেল ও রাবার বুলেট ছুড়ে। মিছিলের প্রথম ভাগ মগবাজার মোড়ে পৌঁছলেও মধ্যভাগ ছত্রভঙ্গ হয়ে যায় এবং শেষ ভাগ কাকরাইল মোড় থেকে নয়াপল্টনে ফিরে যায়।

মতিঝিল বিভাগের এডিসি মেহেদী হাসান বলেন, “বিএনপির মিছিল ঠিকমতোই যাচ্ছিল। হঠাৎ করে মালিবাগ মোড়ে পুলিশের ওপর ককটেল নিক্ষেপ ও গাড়ি ভাঙচুর শুরু করে। এসময় আমরা মানুষের জানমাল রক্ষার্থে রাবার বুলেট ও টিয়ার শেল নিক্ষেপ করি।”

এ ঘটনায় পুরো এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। পথচারীরা ভয়ে নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য দৌড়াতে থাকেন।

এদিকে রাজধানীতে সন্ধ্যার পর বিজিবি নামছে বলে জানা গেছে।

উল্লেখ্য, শনিবার বিকেলে ‘গণহত্যা ও জুলুম-নিপীড়নে’র প্রতিবাদে বিএনপির বিক্ষোভ মিছিলের কর্মসূচি ছিল।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।