গণহত্যা, নির্যাতন ও দুর্নীতি’র প্রতিবাদে বিএনপির ডাকা হরতাল পালিত,নিহত ১

‘গণহত্যা, নির্যাতন ও দুর্নীতি’র প্রতিবাদে প্রধান বিরোধীদল বিএনপির ডাকে মঙ্গলবার সকাল ৬টা থেকে দেশজুড়ে হরতাল শুরু হয়ে সন্ধা ৬ টায় শেষ হয়। হরতালের শুরু থেকেই রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীদের আটক, হরতালের সমর্থনে কড়া পিকেটিং, গাড়ি ভাঙচুর ও ককটেল বিস্ফোরণের খবর আসছে। বিএনপি চেয়ারপার্সন ও বিরোধী দলীয় নেত্রী খালেদা জিয়া গেলো শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে হরতালের ঘোষণা দেন।

বিরোধী নেত্রী বলেন, আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের গণহত্যা, দুর্নীতি ও দুঃশাসনের প্রতিবাদে এ হরতাল ডাকা হয়েছে।

সোমবার এক সংবাদ বিবরণীতে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দাবি করেন, ‘কয়েকদিনে শতাধিক লোককে হত্যা করা হয়েছে। এর মধ্যে নারী, শিশু ও বৃদ্ধরাও বাদ যায়নি। পুলিশ-র‍্যাব ও বিজিবি’র লোমহর্ষক হত্যাকাণ্ডে জাতি আজ ক্ষুব্ধ। দেশবাসী গভীর উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠায় দিন কাটাচ্ছে।’

গণহত্যার কর্মসূচি পরিচালনার প্রতিবাদে হরতাল সফল করতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান মির্জা ফখরুল।

আজকের এ হরতালকে কেন্দ্র করে সোমবার সন্ধ্যা থেকে রাজধানীসহ দেশজুড়ে ককটেল বিস্ফোরণ ও যানবাহনে আগুন লাগানোর ঘটনা ঘটছে প্রচুর।

কাওরান বাজার, মিরপুর দশ, মহাখালী, আরামবাগ, যাত্রাবাড়ী, রামপুরা, দারুস সালাম, পল্লবী ও ফার্মগেটসহ রাজধানীর বাইরে গাজীপুর, ফরিদপুর ও চট্টগ্রাম থেকে ককটেল বিস্ফোরণ ও যানবাহনে  আগুন লাগানোর খবর পাওয়া গেছে।

সোমবার অপর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব রুহল কবির রিজভী জানান, হরতালকে সামনে রেখে সরকারি দলের ক্যাডার এবং পুলিশ বিএনপি নেতাকর্মীদের গণহারে গ্রেপ্তার, নির্যাতন এবং ভয়ভীতি দেখিয়েছেন। পুলিশ বিএনপি নেতাকর্মীদের ঘরে ঘরে হানা  দিয়ে নারী ও শিশুদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করছে।

মঙ্গলবার সকাল থেকেই সারা দেশে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা হরতালের কড়া পিকেটিং শুরু করেছেন।

অন্যদিকে হরতাল প্রতিহত করতেও মাঠে নেমেছেন বিপুল সংখ্যক পুলিশ-র‌্যাব ও বিজিবি।

রাজধানীতে হরতালকে কেন্দ্র করে অন্তত ১০ হাজার পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। সাদা পোশাকের পুলিশের পাশাপাশি নগরীর গুরুত্বপূর্ণ জায়গাগুলোতে ভিডিও ক্যামেরা বসানো হয়েছে।

রাজধানীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে র‌্যঅপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) সদস্যদের মোতায়েন  করা হয়েছে।

সোমবার রাতে ঢাকায় নিরাপত্তা রক্ষায় নিয়োজিত আধা সামরিক বাহিনী বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যদের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়কে টহল দিতে দেখা গেছে।

 মিরপুর-৬ সহ ঢাকার বিভিন্ন স্থানে হরতাল সমর্থকরা অলিগলিতে হরতালের সমর্থনে মিছিল করেছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে।  মিরপুরের বাঙলা কলেজের সামনে একটি যাত্রীবাহী বাসে আগুন দিয়েছে হরতাল সমর্থকরা। এ সময় কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরিত হয়।

চট্টগ্রামের ভাটিয়ারীতে রেললাইন তুলে ফেলেছে হরতাল সমর্থক বিএনপি ও জামায়াতের কর্মীরা। ঢাকা-চট্টগ্রাম ও সিলেট-চট্টগ্রামে রেল যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন।  চট্টগ্রামের ইপিজেড এলাকায় একটি কাভার্ড ভ্যানে আগুন দিয়েছে হরতাল সমর্থকরা।

গাজীপুর জেলা জামায়াতে ইসলামীর আমীর ও ছাত্রশিবিরের জেলা সভাপতিসহ পাঁচ জনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

নয়াপল্টনের বিএনপি কার্যালয়ের সামনে থেকে দলের যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী আহমেদকে আটক করে গাড়িতে তোলার চেষ্টা করে সাদা পোশাকধারী কয়েক জন গোয়েন্দা পুলিশ। এ সময় গোয়েন্দা পুলিশের টানা হেঁচড়ায় মাটিতে পড়ে যান রিজভী। নেতা-কর্মীদের বাধার মুখে রিজভীকে আটক করা যায়নি। বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিপুল সংখ্যক অবস্থান নিয়েছে। হরতাল সমর্থক সন্দেহভাজনদের আটকের চেষ্টা করছে পুলিশ। স্বেচ্ছাসেবদ দলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম-সম্পাদক কাজী রহমান মানিককে আটক করেছে পুলিশ।

  নারায়ণগঞ্জ শহরের কালীবাজার মোড় এলাকায় হরতাল সমর্থকদের মিছিলে পুলিশের বাধা। গুলিবর্ষণ, রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ পুলিশের। জেলা বিএনপির সভাপতি ও বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকার ও দুই সাংবাদিকসহ আহত ১০।

রাজশাহীতে রাজাপাড়া থানা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে হরতাল সমর্থকরা। বহরমপুরে রেললাইনেও আগুন দেয়া হয়েছে। শাহবাগে একটি সিএনজি ট্যাক্সি ভাঙচুর ও কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে হরতাল সমর্থকরা।

রাজধানীর কারওয়ানবাজারে একটি যাত্রীবাহী বাসে ভাঙচুর চালিয়ে আগুন দেয়া হয়েছে। কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এখন পর্যণ্ত কোন হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

গাছের গুঁড়ি ফেলে চাঁদপুর-কুমিল্লা ও চাঁদপুর-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ করে হরতাল সমর্থক বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামীর নেতা-কর্মীরা। অবরোধ অব্যাহত রয়েছে।

 নিহত ১: যশোরের মনিরামপুরে আওয়ামী লীগ- বিএনপি সংঘর্ষে একজন নিহত।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।