মাগুরায় প্রতিপক্ষের গুলিতে প্রান গেল ছাত্রলীগ কর্মীর

মঙ্গলবার দুপুরে মাগুরায় জেলা ছাত্রলীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে আজাদুর রহমান আজাদ (১৮) নামে এক ছাত্রলীগ কর্মী গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা গেছেন। এসময় গুলি ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে উভয় গ্রুপের কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়েছেন।  শহরের পারনান্দুয়ালী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত আজাদ শহরের পারনান্দুয়ালী এলাকার মৃত আব্দুর রহমানের ছেলে। তিনি মাগুরা সরকারি হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজে ম্যানেজমেন্ট অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্র।
মাগুরা সদর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) বদরুজ্জামান  জানান, শহরের রেজিস্ট্রি অফিসে চাঁদা তোলাকে কেন্দ্র করে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ রেজাউল ইসলাম ও সহ-সভাপতি রুহুল আমিন গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা চলছিল। এ ঘটনার জের ধরে মঙ্গলবার দুপুরে জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রেজাউল ইসলামের বাড়ির পাশে দু’গ্রুপের লোকজন সশস্ত্র সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এসময় উভয়পক্ষ গুলি বর্ষণ ও ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এতে ছাত্রলীগ কর্মী আজাদ মাথায় গুলিবিদ্ধ হন। এছাড়া প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে সাজ্জাদুর রহমান ও আকবর হোসেনসহ কমপক্ষে ১০ জন আহত হন। গুরুতর অবস্থায় আজাদসহ আহতদের মাগুরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুপুর আড়াইটার দিকে এদের মধ্যে আজাদ মারা যান।

এদিকে, এ সংঘর্ষের জের ধরে শহরের কেশব মোড় এলাকায় রুহুল আমিনের চাচা মোস্তাক আহমেদকে কুপিয়ে গুরুতর যখম করে প্রতিপক্ষের লোকজন। এসময় তারা মোস্তাকের মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। আহত মোস্তাককে ওই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে মাগুরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে কয়েক রাউন্ড টিয়ার শেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। ফের সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।