হেফাজতে ইসলামের লংমার্চের ঢাকামুখী সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ

নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে চট্টগ্রাম, সিলেট, রাজশাহী, খুলনা, বগুড়া ও বরিশালসহ দেশের অধিকাংশ এলাকা থেকে ঢাকামুখী যান চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। শুক্রবার সকাল আটটা পর্যন্ত কিছু গাড়ি ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসলে পরে কোনো যানবাহন ছাড়েনি। শুক্রবার সকাল থেকে বরিশাল থেকে ঢাকামুখী কোনো লঞ্চ ছাড়েনি।  বৃহস্পতিবার থেকে ট্রেনের সিট ছাড়া টিকিট বিক্রি বন্ধ রয়েছে।

দক্ষিনাঞ্চলের প্রবেশ দ্বারখ্যাত কাওড়াকান্দি-মাওয়া নৌরুটে লঞ্চ-ট্রলার ও স্পিটবোর্ড চলাচল বন্ধ রয়েছে। এদিকে মাদারীপুর জেলায় হরতাল শুরুর আগেই সর্বত্র হরতাল চলছে।

শনিবার হেফাজতে ইসলামের লংমার্চে দক্ষিণাঞ্চলের ধর্মপ্রাণ মানুষ যোগদান করতে না পারে সে জন্যই সরকারি চাপে বাধ্য হয়ে কাওড়াকান্দি-মাওয়া নৌরুটের লঞ্চ-ট্রলার ও স্পিটবোর্ড চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এছাড়াও আন্তঃজেলায় যাত্রীবাহী বাসগুলো চলছে আগের অন্য দিনগুলোর চেয়ে অনেক কম।

এদিকে কাওড়াকান্দি-মাওয়া নৌরুটে লঞ্চ-ট্রলার ও স্পিটবোর্ড চলাচল বন্ধ হওয়ায় ঢাকাগামী যাত্রীরা পড়ছে চরম দূর্ভোগে।

রাজশাহী-ঢাকা রুটে শুক্রবার সকাল থেকে বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। সন্ধ্যা ছয়টা থেকে হরতাল-অবরোধ শুরু হলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে চাপ দিয়ে কৌশলে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা যাতে ঢাকায় লংমার্চে আসতে না পারেন। শুক্রবার  ভোরে কয়েকটি বাস ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে গেলেও সকাল আটটার পর থেকে রাজশাহীর ঢাকা টার্মিনাল  থেকে কোনো বাস ছাড়েনি। এ অবস্থায় অনেকেই বাস কাউন্টারে এসে দুর্ভোগে পড়েন।

হেফাজতের লংমার্চ ঠেকাতে সরকার কৌশলে চাপ দিয়ে মালিকদের যান বাহন চলাচল বন্ধ রাখতে বাধ্য করছে।
সুত্র: নতুন বার্তা

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।