ফুলগাজীতে জাসাস ও ছাত্রদলের মিছিলের হামলার ঘটনায় মামলা,গ্রেফতার ৩

দলীয় কোন্দলকে কেন্দ্র করে ফেনীর  ফুলগাজীতে জাসাস ও ছাত্রদলের মিছিলে হামলার ঘটনায় গতকাল একটি মামলা দায়ের করেছে ফুলগাজী থানা পুলিশ। রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা, গাড়ি ভাংচুর করা, পুলিশি কাজে বাধা দেওয়া ও সহিংসতা করার দায়ে থানার এস আই শাহআলম বাদী হয়ে একটি মামলা করে। যার নং- ১৫। এই মামলায় উপজেলা জাসাসের সভাপতি গোলাম রসুল মজুমদার গোলাপসহ ১২জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৫০/৬০ জনকে আসামী করে। গত সোমবার রাতে অভিযান চালিয়ে ৩ জনকে গ্রেফতার করে। মঙ্গলবার দুপুরে আসামীদেরকে আদালতে প্রেরণ করে। আসামীরা হলো, ফুলগাজীর কিছমিত বিজয়পুর গ্রামের ছাদেকের ছেলে জামাল উদ্দীন (২৪), একই গ্রামের জাফর আহাম্মদের ছেলে মানিক (১৮) এবং দক্ষিণ বরইয়া গ্রামের আবু তাহেরের ছেলে মোহাম্মদ ইউসুফ। উপজেলা জাসাসের সভাপতি গোলাম রসুল মজুমদার গোলাপ জানান, “গতকালকে জাসাসের মিছিলে ফুলগাজী উপজেলার ছাত্রদল যুবদল ও সাধারণ কর্মীগণ জাসাসের ব্যানারের মিছিলে অংশ নেওয়ায় বি.এন.পির সভাপতি শাহাজাহান মজুমদারের ছেলে বাদলের নেতৃত্বে ছাত্রদলের লিটন মেম্বার, বিটু মেম্বার, ইব্রাহিম সহ অন্যান্য সন্ত্রাসীরা অতর্কিত ভাবে জাসাসের মিছিলে হামলা করে। এই হামলায় জাসাসের ৫ জন কর্মী আহত হয়। এ হামলায় লিটন মেম্বার আহত হয়েছে এমন খবর চারদিকে ছড়িয়ে পড়লে তার ওয়ার্ডের ছাত্রদল কর্মীরা উপজেলা ও স্টেশান মাঝামাঝি স্থানে গাছের গুড়ি ফেলে গাড়ি ভাংচুর করে, রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃস্টি করে। পুলিশ এসে রাস্তা প্রতিবন্ধকতা সরাতে গেলে লিটন মেম্বার সহ তার লোকজনের সাথে লিটন মেম্বারের লোকজনের সাথে পুলিশের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। ঘটনার স্থল থেকে লিটন মেম্বারের ৩ জন কর্মীকে আটক করে। ফুলগাজী উপজেলা জাসাসের সভাপতি ও সাংগঠনিক সম্পাদক সহ দলীয় ১০ জনের নাম উল্লেখ করে ৫০/৬০ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়। ঐ ঘটনা চলাকালীন সময় আমার নেতৃত্বে আনন্দপুর বাজারে এবং সাংগঠনিক সম্পাদক সবুজ মেম্বারের নেতৃত্বে মুন্সীরহাট বাজারে একটি মিছিল হয়। উক্ত ঘটনায় আমি এবং আমার সাংগঠনিক সম্পাদক কোনো ভাবে সম্পৃক্ত ছিলাম না।
এ ব্যাপারে ফুলগাজী উপজেলা বি.এনপির সভাপতি শাহাজাহান মজুমদারের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি জানান, ফুলগাজীতে সবাই একসাথে মিছিল করার কথা থাকলেও জাসাস আলাদা ব্যানারে মিছিল নিয়ে কথা কাটাকাটি হলে এক পর্যায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পুলিশ বাদী হয়ে মামলা করেছে। এটার তদন্ত পুলিশ করবে কে দোষী কে নির্দোষ ?
উল্লেখ্য যে, কেন্দ্রীয় নেতাদের মুক্তির দাবীতে ১৮ দলের টানা ৩৬ ঘন্টার হরতালের সমর্থনে গতকাল বিকাল ৫টায় ফুলগাজী উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের জাসাস বিক্ষোভ মিছিল করে। ফুলগাজী বাজারে উপজেলা জাসাসের সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিন মাহমুদের নেতৃত্বে একটি মিছিল বের হয়। মিছিলটি বাজারের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে শ্রীপুর রোডে মিছিলটি গেলে ছাত্রদল কর্মীরা মিছিলের উপর হামলা করে। উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় ৬ জন আহত হয়।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।