দুই ছাত্রদল নেতাকে গুমের অভিযোগ

জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের দুই নেতাকে গুম করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়াগেছে। অভিযোগ করেছেন তাদের পরিবারের সদস্যরা। নিখোঁজ ছাত্রদলের নেতারা হলেন- জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের এমবিএ ছাত্র মো. ওমর ফারুক এবং হাবিবুল্লাহ বাহার ইউনিভার্সিটি কলেজের বিবিএ দ্বিতীয় বষের্র ছাত্র মো. মাহমুদুর রহমান খান। তারা উভয়েই ছাত্রদলের রাজনীতিতে সক্রিয়। পরিবারের অভিযোগ, তাদের বিরুদ্ধে কোনো থানায় অভিযোগ নেই। কেবল রাজনৈতিক কারণেই তাদের গুম করা হয়েছে।

শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবে পৃথক সংবাদ সম্মেলনে ওমর ফারুক ও মাহমুদুর রহমানের পরিবার এই অভিযোগ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে ফারুকের বাবা আবুল কাশেম বলেন, ‘আমার ছেলে ফারুক মতিঝিলের সরদার কলোনীতে বসবাস করত। পায়ে ফোঁড়া হলে গত ৯ এপ্রিল চিকিৎসার জন্য ইসলামী ব্যাংক হাসপাতালের উদ্দেশে বাসা থেকে বের হয়। এরপর থেকে তাকে আর খুঁজে পাচ্ছি না।’ তিনি বলেন, ‘ছেলেকে ফিরে পেতে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ করেছি। পত্রিকায় বিজ্ঞাপন ও থানায় জিডি করেছি। র‌্যাব-পুলিশের ঊর্ধ্বতন মহলে যোগাযোগ করেও কোনো সন্ধান পায়নি।’ জনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে তার ছেলেকে গুম করা হয়ে থাকতে পারে বলে এ সময় দাবি করেন আবুল কাশেম।

সংবাদ সম্মেলনে ফারুকের মা পেয়ারা বেগম, ছাত্রদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আনিসুর রহমান তালুকদার খোকনসহ পরিবারের অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

পৃথক সংবাদ সম্মেলনে মাহমুদুর রহমানের বাবা মোখলেসুর রহমান বলেন, ‘তার ছেলে মাহমুদুর রহমানকে ১১ এপ্রিল রাত ২টা ১১ মিনিটে টিএন্ডটি কলোনীর বাসা থেকে ডিবি পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিভিন্ন দপ্তরে যোগাযোগ করলেও তার খোঁজ পাওয়া যায়নি।’ এ বিষয়ে তিনি মতিঝিল থানায় জিডি ও র‌্যাব-৩ পরিচালক বরাবর ছেলের সন্ধান পেতে আবেদন করেছেন। কিন্তু ১২ দিন পার হলেও এখনো ছেলের খোঁজ পাননি বলে জানান।

মোখলেসুর রহমান জানান তার ছেলেকে রাজনৈতিক কারণে প্রতিপক্ষ গুম করে থাকতে পারে   ।

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।